অভিভাবকহীন বিলকিসের বিয়ের দায়িত্ব নিল আদর্শ যুব কল্যাণ পরিষদ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:: খাগড়াছড়িতে পিতা-মাতার মৃত্যুর পর অসহায় হয়ে যাওয়া বিলকিস আক্তারের বিয়ের দায়িত্ব নিলেন ৩নং ওয়ার্ড আদর্শ যুব কল্যাণ পরিষদ। শালবন আঠার পরিবারের মৃত ইব্রাহীম গাজী ও রাশেদা বেগমের ৩ মেয়ের মধ্যে বিলকিস সবার ছোট।

পরিবারের দুই অভিভাবকের মৃত্যুর পর অসহায় হয়ে যায় বিলকিস। মাধ্যমিকের গন্ডি পেরিয়ে স্বাবালিকা বিলকিস কলেজ জীবনে পা দিলেও নেই তার কোন ভাইও। এদিক -সেদিক থেকে বিয়ের জন্য আসছিল তার। কিন্তু দায়িত্ব নিয়ে বিয়ের খরচ যোগানোর মত নেই কোন মানুষ। এক পর্যায়ে খবর পেয়ে সে অসহায় বিলকিসের বিয়েতে আর্থিক সাহার্য্যরে উদ্যোগ নেয় ৩নং ওয়ার্ড আর্দশ যুব কল্যাণ পরিষদ।

রবিবার রাতে খাগড়াছড়ি জেলা শহরের শান্তিনগর তার খালার বাড়ীতে ছোট পরিসরে আলোক সজ্জাসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে গায়ে হলুদ অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার রাউজানের শাহ নগর ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত ইউসুফ আলীর ছেলে জামাল হোসেন এর সাথে তার বিবাহের আয়োজন করা হয়েছে।

আর্থিক সহায়তা অংশ নেওয়া বিলকিসের মেহেদি অনুষ্ঠানে ছুটে যান খাগড়াছড়িবাসীর প্রিয় নেতা,সমাজ সেবক,খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক দিদারুল আলম দিদার। তিনি বলেন, সামাজিক ভাবে একটি সংগঠনের পক্ষ থেকে এ ধরনের দায়িত্ব নিয়ে অসহায় মেয়েকে বিয়ে দেওয়া ও পাশে দাড়ানোর মত ঘটনা খাগড়াছড়িতে বিরল। সংগঠনটি যে উদ্যোগ নিয়েছে তা প্রত্যেক এলাকায় এলাকায় গড়ে উঠলে সমাজ ব্যবস্থার দৃশ্যপট অনেকটা পরিবর্তন মূখী হতো বলে তিনি মন্তব্য করে এ সংগঠনের উদ্যোক্তাদের ধন্যবাদ জানান তিনি।

এ সংগঠনের সভাপতি নিজাম উদ্দিন মুন্না ও সাধারণ সম্পাদক তৈয়ব উদ্দিন বাঁচা ও নয়ন,তানজিল,জাহেদ,রনি,শহীদ সঞ্জয় বলেন, সামাজিক দায়বদ্ধতা আর মানবিকতা থেকে এ ধরণের উদ্যোগ নিয়েছি। আগামীতেও এ ধরণের সামাজিক ভাবে অসহায়দের পাশে দাড়ানোসহ স্থানীয় ভাবে শান্তি-শৃঙ্খলা ও সেবামূখী কর্মকান্ডে সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে সমাজ ব্যবস্থা পরিবর্তনের কাজ করে যাবেন বলে মন্তব্য করেন।

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি