আমের স্বাদে নেয়ার আগে ভাল করে দেখুন ফরমালিন দেওয়া আছে কি না!!

আপডেট: জুন ৯, ২০১৯
0

মীর জাহান :
বাংলাদেশে এখন পাকা আমের মৌসুম। দেশের প্রায় সকল অঞ্চলে আম পাওয়া গেলেও উত্তরবঙ্গ তথা রাজশাহীর ল্যাংড়া, আম্রপালি, খিরসা, গোপালভোগ এসব আমের স্বাদ অতুলনীয়। বিশেষ করে ল্যাংড়া এবং আম্রপালি বাংলাদেশের এমনকি পৃথিবীর সেরা আম গুলোর মধ্যে পড়ে। আমি রাজশাহীতে থাকাকালীন ফেসবুকের অনেক ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের জন্য আম পাঠিয়েছি। আত্মীয় স্বজনদের জন্য ও এসএ পরিবহনের মাধ্যমে আম পাঠিয়ে দিতাম। এখনতো অনলাইনে যোগাযোগ করে ঘরে বসেই রাজশাহীর আম পাওয়া যায়।

ফ্রান্সে বিভিন্ন দেশ থেকে আম আসে, এখানে বাংলাদেশ থেকে আসা শাকসবজী, মসলা, মাছ এমনকি পান-সুপারীও পাওয়া যায়। কিন্তু বাংলাদেশের আম এখনো আমার নজরে পড়েনি। স্পেন, ডোমিনিকা রিপাবলিক বা অন্যান্য দেশ থেকে যেসব আম আসে সেগুলো দেখতে খুব চমৎকার হলেও স্বাদের দিক দিয়ে আমার দেশের ল্যাংড়া বা আম্রপালির ধারেকাছেও নেই।

আমার জীবনে এযাবতকালের সেরা আম খেয়েছিলাম পশ্চিম আফ্রিকার দেশ লাইবেরিয়াতে। আহ্ আমের কী স্বাদ! মুখে দিলে প্রাণটা জুড়িয়ে যায় আমের স্বাদে। গোটা আমে একটুও আঁশ নেই, সেই আমগুলো গাছে পাকতে পাকতে নীচে পড়ে যায় অথচ কেউ খায়না। সিয়েরা লিওন এবং লাইবেরিয়ার আবহাওয়া এমন যে সেখানে বছরের প্রায় অর্ধেক সময় জুড়ে গাছে আম ধরে, কিন্তু এসব দেশের লোকজন সম্ভবত এই অসাধারণ ফলের প্রতি তেমন আগ্রহী নয়। জানিনা ওরা আম রপ্তানি করে কি না, রপ্তানি করতে হলে যেভাবে প্রক্রিয়াজাত করতে হয় তেমন কোন কার্যক্রম চোখে পড়েনি।

আমাদের দেশে অসৎ ব্যবসায়ীদের লোভের কারণে এই চমৎকার ফলটি মানুষের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গাছে থাকতেই শুরু হয় বিষাক্ত কীটনাশক দেওয়া যা চলে ক্রেতাদের হাতে পৌঁছানো পর্যন্ত। কাঁচা আম গাছ থেকে পেড়ে বাজারে সরবরাহ করা হয় এবং এমনভাবে ফরমালিন দেওয়া হয় যাতে শেষ পর্যন্ত আম শুকিয়ে গেলেও এগুলো পঁচে যাওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। একটা সুস্বাদু পুষ্টিকর খাবারকে বিষ বানিয়ে মানুষের সাথে প্রতারণা করা হয়।

তাই বলছি, আমের স্বাদে অভিভূত না হয়ে আগে ভাল করে দেখুন তাতে ফরমালিন দেওয়া আছে কি না; নয়তো কষ্টার্জিত টাকা দিয়ে বিষ কিনে নিয়ে নিজের ও পরিবারের সদস্যদের জীবন হুমকির মুখে ফেলবেন

LEAVE A REPLY