এবার পাকিস্তানে ‘নিষিদ্ধ’ হচ্ছে ভারতীয় সিনেমা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৯

কাশ্মীরের পুলওয়ামা জঙ্গি হামলায় ৪০ জনেরও বেশি ভারতীয় সৈনিক নিহত হন। এরপরেই ভারতের ‘অল ইন্ডিয়ান সিনে ওয়ার্কার্স’ থেকে জানানো হয়, পাকিস্তানি সিনেমা ও তারকারা নিষিদ্ধ হয়েছেন বলিউডে। ভারতে তাদের বয়কট করা হয়েছে।

এর সঙ্গে আরও ২৪টি ফিল্ম সংস্থাও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এবার পাকিস্তানও একই কাজ করতে যাচ্ছে। ভারতীয় সিনেমা বয়কট করার জন্য পিটিশন ফাইল করা হয়েছে লাহোর হাইকোর্টে।

লাহোর হাইকোর্টে পিটিশনটি ফাইল করেছেন শেখ মোহাম্মদ লতিফ। তার আবেদন, ২০১৬ সালেই সরকার দ্বারা প্রণীত ‘ইমপোর্ট পলিসি অর্ডার’ অনুযায়ী ভারতীয় সিনেমা আমদানি নিষিদ্ধ করা হয় পাকিস্তানে। তবে লতিফ এটাও স্বীকার করেন, সেই পলিসি মেনে কাজ হয়নি।

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি জানিয়েছিলেন, পাকিস্তানের সিনেমা জগতের উন্নয়নের স্বার্থে আন্তর্জাতিক সিনেমা প্রদর্শন বন্ধ করা যাবে না। তারমধ্যে বলিউড সিনেমা ছিল অন্যতম।

পুলওয়ামার ঘটনার পর ভারতের সিদ্ধান্ত পাকিস্তানকে এই বিষয়ে নতুন করে ভাবাতে শুরু করেছে। টেলিভিশনে ভারতীয় বিষয়বস্তু দেখানো সম্প্রতি নিষিদ্ধ করেছে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট। লতিফের আবেদন, সিনেমার ক্ষেত্রেও যেন একই সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান। নওয়াজ শরিফের বক্তব্যকে সরিয়ে যেন নতুন করে ভাবনা শুরু করে পাকিস্তানের বিচারব্যবস্থা।

এদিকে প্রযোজক মুরাদ খেতানি জানিয়েছেন, তার পরবর্তী সিনেমা সালমান খান প্রযোজিত ‘নোটবুক’ এবং শহীদ কাপুর অভিনীত ‘কবির সিং’ পাকিস্তানে মুক্তি পাবে না। পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার প্রতিবাদে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর আগেও ‘টোটাল ধামাল’ ও ‘লুকাছুপি’ সিনেমার নির্মাতারা জানিয়েছিলেন তাদের সিনেমা পাকিস্তানে মুক্তি পাবে না।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া