কমিল্লা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হামলা : মীর্জা ফখরুলের নিন্দা

0
68

কুমিল্লায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন
গতকাল কিশোরগঞ্জ জেলাধীন কুলিয়ারচর উপজেলায় কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র নবগঠিত কমিটির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পুলিশী ব্যাপক হামলা চালিয়ে সভার মঞ্চ, মাইক ও অন্যান্য সরঞ্জামাদী ভাংচুর, নেতাকর্মীদের বাড়ীতে বাড়ীতে তল্লাশীর নামে পরিবারের সদস্যদের ভয়ভীতি প্রদর্শণ, আসবাবপত্র ভাংচুর, রাস্তায় রাস্তায় ব্যারিকেড, কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মীদৈরকে বেধড়ক পিটিয়ে আহত এবং কুলিয়ারচর থানা ওলামা দলের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা তাজুল ইসলাম, যুবদল নেতা মো: রতন, মোতাহার ও ছাত্রদল নেতা নয়নকে গ্রেফতার এবং কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও বিএনপি’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (ময়মনসিংহ বিভাগ) মো: শরীফুল আলমকে প্রধান আসামী করে দুটি বানোয়াট ও রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যপ্রনোদিত মামলায় শতাধিক নেতাকর্মীকে জড়ানোর ন্যাক্কারজনক ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
আজ এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “বিরোধী দল দমনে বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর হিংসাশ্রয়ী রাজনীতিতে সারাদেশটাই এখন কারাগারে রুপান্তরিত হয়েছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী ভোটারবিহীন নির্বাচনের পর জোরজবরদস্তিমূলকভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের পর থেকে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোকে নিশ্চিহ্ন করতে সরকারের ঔদ্ধত্য এখন সীমাহীন পর্যায়ে। বিএনপিকে ধ্বংস করার মূখ্য উদ্দেশ্য নিয়ে দেশব্যাপী গুম, খুন, জখম ও অপহরণের পাশাপাশি ধারাবাহিকভাবে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের এবং তাদেরকে গ্রেফতার করে রিমান্ডের নামে ব্যাপক নির্যাতন চালানো হচ্ছে। সভা, সমাবেশ করার ক্ষেত্রে সরকারী দলের জন্য একধরণের নীতি এবং বিরোধী দলগুলোর জন্য দমন-পীড়ণ নীতি অবলম্বন করা হচ্ছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে-স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি এখন আওয়ামী লীগের নিজস্ব পৈত্রিক ভূমিতে পরিণত হয়েছে- যেখানে সকল ক্ষমতা, সকল অধিকার কেবলমাত্র আওয়ামী লীগের, অন্য কোন দল বা জনগণের সেখানে বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা কিংবা গণতান্ত্রিক অধিকারের কোন সুযোগ থাকবে না। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। সারাদেশের জনগণ এখন বর্তমান সরকারের স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ। বিএনপি দেশের একটি বৃহৎ ও জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল। বিএনপিকে ধ্বংস করার চক্রান্ত ও সকল অপকৌশল রুখে দিতে সারাদেশের বিএনপি’র মতো কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপিও জেলা সভাপতি মো: শরীফুল আলম এর সুযোগ্য নেতৃত্বে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে আশাবাদী। কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পুলিশী হামলা ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ষড়যন্ত্রমূলক ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহার করে তাদের শর্তহীন মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।”
সাংগঠনিক সম্পাদক এর নিন্দা ও প্রতিবাদ
অপর এক বিবৃতিতে বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক (ময়মনসিংহ বিভাগ) এমরান সালেহ প্রিন্স গতকাল কিশোরগঞ্জ জেলাধীন কুলিয়ারচর উপজেলায় কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র নবগঠিত কমিটির সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পুলিশী ব্যাপক হামলা, নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের ও নির্যাতনের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তিনি অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও বিএনপি’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (ময়মনসিংহ বিভাগ) মো: শরীফুল আলমমহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার দাবি করেন।

LEAVE A REPLY