কলা-কচু বিক্রেতা যখন মিডিয়ার মালিক!!!!!

আপডেট: জুন ১৩, ২০১৯
0

আবু সালেহ আকন:
নওবালীদের বক্তব্য পড়লাম। মনে হয়েছে নওবালীরা সাংবাদিকদের অনেক টাকা বেতন দিয়ে দিচ্ছে; যা শিক্ষা বা যোগ্যতা অনুযায়ী একজন সাংবাদিক প্রাপ্য নন! আরে মিয়া, আপনাদের অনেকেতো কলা-কচু বিক্রি করতেন।

এখন মিডিয়ার মালিক হয়েছেন। মদ-বিয়ার বিক্রি আর ভূমিদস্যুতার অভিযোগতো অনেকের বিরুদ্ধেই আছে। আরো কতো আকাম-কুকাম করছেন! কয়টা মিডিয়া ওয়েজবোর্ড অনুযায়ী বেতন দিচ্ছে?

সরকারকে তথ্য দিচ্ছেন এক, আর বাস্তবে বেতন দিচ্ছেন আরেক! গন্ডায় গন্ডায় মিডিয়ার মালিক হয়েছেন এক একজন, প্রভাবশালী কেউ প্রেস কনফারেন্স করলে তেল মারার জন্য আগে আগে দৌঁড়ান। ‘ক’ লিখতে কলম ভাঙ্গেন, আর দামী গাড়ীতে সাংবাদিক লিখে ঘোরেন!

আর সাংবাদিকদের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন! আমার জানামতে সিটি কর্পোরেশনের এক ঝাড়ুদার আছেন যিনি দু’টো পত্রিকার মালিক। মিডিয়ার মালিক হয়ে আকামগুলারে আড়াল করছেন! সাংবাদিকদের নাম বিক্রি করে এক একজন হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছেন! বুঝছেন আমরা কিছুই জানি না!

আর সাংবাদিকরা রাত-দিন পরিশ্রম করলেও তাদের বেতন-ভাতা দিতে গায়ে লাগে! তাই না? দুর্ভাগ্য আমাদের, আজ সাংবাদিকরা দলে-উপদলে বিভক্ত। না হলে বুঝতেন কতো ধানে কতো চাল।

নওবালীদের বিবৃতির ব্যাপারে সাংবাদিক ইউনিয়নগুলোর সুনির্দিষ্ট বক্তব্য আশা করছি। মালিকরা যে ধৃষ্টতা দেখাচ্ছে তার প্রতিবাদে কর্মসুচি দাবি করছি।

লেখক: সাবেক সভাপতি বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন, সিটি এডিটর নয়াদিগন্ত

LEAVE A REPLY