কাজাখস্তানের রাজধানীর নতুন নাম নুরসুলতান

আপডেট: মার্চ ২১, ২০১৯
0
ছবি; সংগৃহীত

ডেস্ক রিপোর্ট:

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যখন ক্ষমতা আকড়ে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে ক্ষমতাসীনরা। অনেক সময় এটি করতে গিয়ে পুরো দেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন ক্ষমতায় থাকা ব্যক্তি বা দলগুলো। এমন পরিস্থিতিতে স্বেচ্ছায় পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে অন্যরকম নজির স্থাপন করেছেন মধ্যএশিয়ার দেশ কাজাখস্তানের প্রেসিডেন্ট নুরসুলতান নাজারবায়েভ। তার প্রতিদানও হাতেনাতেই পেয়েছেন তিনি।

বুধবার কাসেম জোমার্ত নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েই বলেন, আমাদের দেশের প্রথম প্রেসিডেন্টের সম্মানে রাজধানী আস্তানার নতুন নাম করার প্রস্তাব করছি। আস্তানার নতুন নাম নুরসুলতান রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

এর আগে গত মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে স্বেচ্ছায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন ৩০ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা এই শাসক। সংবিধানের বিধি অনুযায়ী বাকি মেয়াদে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের স্পিকার কাসিম-জোমার্ত তোকায়েভ ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানান তিনি।

নুর সুলতানের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত জোমার্ত মূলত একজন কূটনীতিবিদ। প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার আগে তিনি সিনেটে স্পিকারের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি নাজারবায়েভের অবশিষ্ট মেয়াদ পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে থাকবেন। ২০২০ সালে দেশটিতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নুরসুলতান ১৯৮৯ সালে সোভিয়েত রাশিয়ার সাবেক এ প্রজাতন্ত্রের দায়িত্ব নেন। প্রথমে কমিউনিস্ট নেতা এবং পরে প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। ফলে প্রায় তিন দশক ধরেই তিনিই ছিলেন দেশটির ইতিহাসের প্রথম ও একমাত্র প্রেসিডেন্ট। পরবর্তী সময়ে তেলসমৃদ্ধ দেশটিতে বিদেশি জ্বালানি কোম্পানিগুলোর শত শত কোটি ডলার বিনিয়োগ আকর্ষণে সক্ষম হন তিনি।

জানা গেছে, প্রেসিডেন্ট পদ থেকে পদত্যাগ করলেও নিরাপত্তা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং নুর ওতান পার্টির নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাবেন তিনি। এ দলটিই এখন পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠ।

সূত্র : নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড

LEAVE A REPLY