কানাডা বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে আগ্রহী

আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০১৮

বাংলাদেশের সঙ্গে বিদ্যমান বাণিজ্য বাড়ানোর বিষয়ে গভীর আগ্রহ প্রকাশ করেছে কানাডা। রবিবার এফবিসিসিআই কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় বাংলাদেশে কানাডার হাইকমিশনার বেনোই প্রেফনটেইন এ আগ্রহ প্রকাশ করেন।

সভায় কানাডার হাই কমিশনার বেনোই প্রেফনটেইন বলেন, আমরা একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদার হিসেবে বাংলাদেশকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে থাকি। দুদেশের মধ্যে বিদ্যমান বাণিজ্য এখনো সন্তোষজনক পর্যায়ে পৌছায়নি। অনেক সম্ভাবনাময় খাতে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। এ লক্ষ্যে এখন কানাডীয় ব্যবসায়িরা দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে আগের চেয়ে আরও বেশি সংখ্যায় বাংলাদেশে আসছেন।

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কানাডায় শুল্কমূক্ত প্রবেশাধিকার দেওয়ায় হাইকমিশনারকে কৃতজ্ঞতা জানান এফবিসিসিআই সভাপতি। এছাড়া বাংলাদেশ সরকারের দেওয়া আকর্ষণীয় বিনিয়োগ সুবিধা গ্রহণ করে এদেশের সম্ভাবনাময় চামড়া শিল্প, ঔষধ শিল্প, তথ্যপ্রযুক্তি এবং পর্যটন ইত্যাদি খাতে বিনিয়োগের জন্য তিনি কানাডার ব্যবসায়িদের আহ্বানও জানান তিনি।

এফবিসিসিআই সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, দেশের বর্তমান চাকুরির বাজারের কথা মাথায় রেখে এফবিসিসিআই ইনস্টিটিউট থেকে প্রযুক্তি ও কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন মানবসম্পদ গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে। বাংলাদেশ ও কানাডার সম্ভাবনাময় খাতগুলো নিয়ে কাজ করার জন্য দুদেশের ব্যবসায়িদের সমন্বয়ে ওয়ার্কিং গ্রুপ তৈরি করা দরকার। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের সাম্প্রতিক বিভিন্ন অর্জন এবং আমাদের বৈচিত্রপূর্ণ রপ্তানি পণ্য ভান্ডার সম্পর্কে বিশ্ববাসীর মনোযোগ আকর্ষণের জন্য কানাডার ব্যবসায়িদের প্রতি অনুরোধ জানান।

উল্লেখ, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১১১৮.৭২মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য কানাডায় রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ এবং কানাডা থেকে আমদানি করা হয়েছে ৪৯৮.২০মিলিয়ন ডলারের পণ্য। কানাডায় বাংলাদেশের রপ্তানিযোগ্য পণ্যগুলো হচ্ছে ওভেন গার্মেন্টস, নীটওয়্যার, হোম টেক্সটাইল এবং ফুটওয়্যার। আর কানাডা থেকে মুলত ভেজিটেবল পণ্য, মেশিনারি এবং মেকানিক্যাল যন্ত্রপাতি এবং বস্ত্র ও বস্ত্রসামগ্রী আমদানি করা হয়।