খালেদার চিকিৎসা নিয়ে ভ্রুম্রজাল সৃষ্টি করেছে সরকার: সুপ্রিম কোর্ট বার

আপডেট: জুন ১৪, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (বার) সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে ভ্রুম্রজাল সৃষ্টি করেছে সরকার। আর এই বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মহল বিভিন্ন কথা বলছেন। খালেদা জিয়ার বিষয়টি নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। অবিলম্বে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হোক।
জয়নুল আবেদীন বলেন, আইনের দৃষ্টিতে চিকিৎসা নেওয়ার অধিকার বেগম খালেদা জিয়ার আছে। মৌলিক অধিকার মানবাধিকারের কথা চিন্তা করে খালেদা জিয়ার কারাগার থেকে ইউনাইডেট হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হোক।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুন) দুপুরে “মাদক নির্মুলে বন্ধুক যুদ্ধের নামে মানুষ খুন বন্ধ” শিরোনামে সুপ্রিম কোর্টের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি জয়নুল আবেদীন এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, গত দুইদিন যাবত আপনার লক্ষ্য করছেন বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি আবেদন করা হয়েছে। এটিই আইনের বিধান। তার পরিবারের করা আবেদন থেকে জানা গেছে খালেদা জিয়া পিজি হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে চান।
এ বিষয়ে পত্রিকার নিউজে এসেছে যে চিকিৎসার জন্য ব্যাক্তিগতভাবে খরচ করতে রাজি আছেন খালেদা জিয়া। এরকম অতীতে অনেক উদাহরণ আছে কয়েদিরা ব্যাক্তগত খরচ বহন করে চিকিৎসা নিতে পারেন। সেই কারণে বেগম খালেদা জিয়ার পরিবার থেকে একটি আবেদন করা হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে।

তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস ছিলো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই অঅবেদন গ্রহন করে ইউনাউটেড হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ব্যবস্থা করবেন। স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয় সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবে।
তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং একটি বৃহৎ গনতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের চেয়ারপারসন। তার চিকিৎসা পাওয়ার অধিকার রয়েছে। বেগম জিয়ার সুচিকিৎসা তিনি যেভাবে চাবেন,সেভাই চিকিৎসা দেওয়া উচিত।
সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি জয়নুল অাবেদীন বলেন, মাদক নির্মুলে বন্ধুক যুদ্ধের নামে মানুষ খুন বন্ধ করতে হবে।
তিনি বলেন, অামরা মনে করি অাইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে বেঅাইনি কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করা কোনভাবেই কাম্য নয়। অামরা জানতে পেরেছি প্রায় ২০০ জনের বেশি নাগরিককে এরইমধ্যে বন্ধুক যুদ্ধের নামে হত্যা করা হয়েছে। অনেক নিরিহ ব্যক্তিকেও জীবন দিতে হয়েছে। অথচ সরকারের ছত্র ছায়ায় অনেক গডফাদার দেশের বাইরে চলেগেছে। এটা কোন সভ্য দেশে কাম্য হতে পারেনা।

তিনি অারও বলেন, অামরা চাই বাংলাদেশ মাদক মুক্ত হউক। তবে সেটা অবশ্যই অাইন মোতাবেক হতে হবে। বিচার বহির্ভুত হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে নয়। দেশের অাইন অাদালত বিচারের জন্য। একজন অপরাধীও অাইন মোতাবেক বিচার পাওয়ার অধিকারী। তাই বিচার বহির্ভুত হত্যাকাণ্ড বন্ধ করার জন্য অাহ্বান জানান তিনি।
বারের সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, প্রয়োজনে অাইন সংশোধন করে দ্রুত বিচারের নেওয়া হোক। বিনা বিচারে হত্যা সংবিধান, মানবাধিকার ও অাইনের লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে ১৩ জুন বিকেলে মালিবাগের বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে খন্দকার মাহবুব হোসেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি চেয়েছেন। এই প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, এটা অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেনের ব্যাক্তিগত অভিহিত।

কারণ খন্দকার মাহবুব হোসেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী।খন্দকার মাহবুব হোসেন বিএনপি চেয়ারপারসনের প্যারোলে মুক্তি চাইতেই পারেন। তার এই মতামতের উপরে আমরা কোনো বক্তব্য রাখতে চাই না।
# কাশেম