খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে বিকেলে ফের কারাগারে যাবেন আইনজীবীরা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮
0

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে আজ বুধবার আবারও কারাফটকে যাবেন অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া ও মাসুদ আহমেদ তালুকদার।

বিকাল ৩টায় নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে যাবেন এ দুই আইনজীবী।
এর আগে মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি তারা। কারাফটকের সামনে প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থান করে ফিরে এসেছেন।
আইনজীবীরা জানিয়েছেন, আজ বিকাল ৩টায় আবারও তারা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাফটকে যাবেন।
সানাউল্লাহ বলেন, মঙ্গলবার আমরা গিয়ে সেখানে এক ঘণ্টা অপেক্ষা করেছিলাম। কারা কর্তৃপক্ষ আমাদের বলেছে- আজ দেখা হবে না। তিনি বলেন, ২০ সেপ্টেম্বর মামলার তারিখ নির্ধারণ ছিল। আমাদের দেখা করতে না দিলে আমরা কীভাবে আদালতকে সহযোগিতা করব। বুধবার আবার দেখা করতে আসব। যদি না পারি সেটি আদালতকে জানাব।

আরো পড়ুন:

তিনি বলেন, আমাদের মামলার ব্যাপারে নির্দেশনা নেয়ার প্রয়োজন ছিল। আদালতের আদেশের পরও দেখা করতে পারিনি। বুধবার আবারও ৩টায় আমরা আসব।
উল্লেখ্য, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী আদালতে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার বিচার চলছে।
২০ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চলবে কিনা সে বিষয়ে আদেশের দিন ধার্য করা হয়েছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর কারাগারে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে আইনজীবীদের পদযাত্রা , আল্টিমেটাম

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৮

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ বিভিন্ন দাবিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে পদযাত্রা করেছে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুয়ায়ী মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টায় ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়ার মুক্তি আইনজীবী আন্দোলন’ ব্যানারে আইনজীবীরা স্মারকলিপি নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট প্রঙ্গণ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে রওয়ানা দেন।
দুপুর সোয়া ২টার দিকে পদযাত্রাটি সুপ্রিম কোর্ট মাজার গেটে পৌঁছালে পুলিশ গেট বন্ধ করে দেয়। পরে আইনজীবীরা সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন।

সমাবেশে আইনজীবীরা বলেন, আগামী ২২ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দাবী আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে।

পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছে দেয়ার আশ্বাস দিলে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি তুলে দেন আইনজীবীরা। সংক্ষিপ্ত সমাবেশে অ্যাডভোকেট আবেদ রাজা বলেন, পুলিশ দিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। আইনজীবীরা রাজপথে নেমেছে। আন্দোলন এখন আর আদালত অঙ্গনে নয়, রাজপথে করতে হবে।

তিনি বলেন, একজন অসুস্থ আসামির বিচারের জন্য কারাগারে আদালত স্থাপন করা কোনো নজির নেই। অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। তা না করা হলে, তার জীবন বিপন্ন হলে দায় সরকারকে নিতে হবে।

আরো পড়ুন: জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ত্যাগ করছেন প্রধানমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, যখন কারাগারে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার অভাবে হাত পা অবশ হয়ে যাচ্ছে তখন মনে হচ্ছে সরকারে যারা আছে তাদের মাথা অবশ হয়ে গেছে।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী গুরুতর অসুস্থ হলেও প্রশাসন ও বিচার বিভাগ চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়নি। বর্তমান সরকারের সঙ্গে স্বৈরশাসকের পার্থক্য কি? তিনি বলেন, আইনজীবীরা রাস্তায় নেমেছে। প্রয়োজনে প্রধামন্ত্রীর দফতরের সামনেও যাবে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়া মুক্তি আইনজীবী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবিএম ওয়ালিউর রহমান খান, সংগঠনের সদস্য সচিব এবিএম রফিকুল হক তালুকদার রাজা, মো. মনির হোসেন, আনিছুর রহমান খান, আইয়ুব আলী আশ্রাফী, আনজুমান আরা বেগম মুন্নি, মাসুদুল আলম দোহা, ওয়াসিল উদ্দিন বাবু, নাজমুল হোসেন, আবদুস সাত্তার, মো. মহীদ উদ্দিন, শফিউর রহমান শফি প্রমুখ।

LEAVE A REPLY