খুলনায় প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে আটক ২, কক্ষ পরিদর্শককে কারাদণ্ড বহিস্কার-১

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০
0

মোঃ আনোয়ার হোসেন আকুঞ্জী, খুলনা ব্যুরো :
ডুমুরিয়ায় এসএসসি পরীক্ষায় অসাধুপায় অবলম্বনের দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে এক শিক্ষককে কারাদ- এবং এক শিক্ষার্থীকে বহিস্কার এবং কয়রায় পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টাকালে ২ ব্যক্তিকে হাতে-নাতে আটক করা হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সোমবার অনুষ্ঠিত এসএসসি (ভোকেশনাল) পদার্থ বিজ্ঞান পরীক্ষায় ডুমুরিয়া এনজিসি এন্ড এনসিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি (ভোকেশনাল)পরীক্ষা কেন্দ্রের কক্ষ পরিদর্শক ও চুকনগর দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ হাফিজুর রহমানকে পরীক্ষার্থীদের নকল সরবরাহ করার সময় হাতেনাতে আটক করা হয়। এ সময় তাৎক্ষণিকভাবে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই কক্ষ পরিদর্শককে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদ-ে দ-িত করা হয়।
এদিকে পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে চুকনগর হাচানিয়া দাখিল মাদ্রাসা ছাত্র ইসমাইল পারভেজকে (রোল নং ১৭৫৬৭৮) বহিস্কার করা হয়েছে। ডুমুরিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সঞ্জিব দাশ জানান, আজ চলতি দাখিল পরীক্ষা পরিদর্শনকালে চুকনগর হাচানিয়া দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে ঐ পরীক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়েছে। সে ওই মাদ্রাসারই ছাত্র । ক্ষমতার অপব্যবহার করে শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ক্যালকুলেটর নিয়ে নেয়ায় অংক পরিক্ষা ভাল হয়নি ঋতু সরদারের। এ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট ওই পরীক্ষার্থীর অভিভাবক সুভাষ সরদার লিখিত অভিযোগ করলে তাকে কেন্দ্র থেকে প্রত্যাহার করে অন্য আরেকটি পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।
অপরদিকে সোমবার এসএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগে খুলনার কয়রা উপজেলার জায়গীর মহল তকিম উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে অংক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টাকালে ২ ব্যক্তিকে হাতে-নাতে আটক করা হয়েছে। আটককৃত ব্যক্তিদ্বয় উপজেলার কাটনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক দেবব্রত বাহাদুর ও অফিস সহকারি গৌর হরি ম-ল। কেন্দ্র সচিব সূত্রে জানা যায়, ‘পরীক্ষা শুরুর আগে ৯টা ৫৯ মিনিটে কেন্দ্রের ১২ নং পরীক্ষা কক্ষের কক্ষ পরিদর্শক টেবিলে প্রশ্নপত্র রেখে ওএমআর শীট সংক্রান্ত সমস্যা সমাধান করার সময় আটককৃত ব্যক্তিদ্বয় কৌশলে কক্ষে প্রবেশ করে এবং প্যাকেট হতে প্রশ্নপত্র বের করে স্মার্টফোনে প্রশ্নপত্রের ছবি নিয়ে বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু উক্ত ২ ব্যক্তির পরীক্ষা কেন্দ্রে কোন দায়িত্ব না থাকার পরও পরীক্ষা কেন্দ্রে অবস্থান করার কারনে কেন্দ্র সচিবের সন্দেহ হলে তাদেরকে অফিস কক্ষে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় তাদের কাছে থাকা মোবাইল ফোনে অংক পরীক্ষার প্রশ্নের ছবি পাওয়া যায়। এরপর তাদের আটক করে কয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ নূর ই আলম সিদ্দিকী’র নিকট হস্তান্তর করা হয়।’ এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ নূর ই আলম সিদ্দিকী’র সাথে কথা হলে জানান, ‘আটককৃত ব্যক্তিদ্বয় প্রশ্নপত্র ফাঁস করার চেষ্টা করলে তাদেরকে হাতে-নাতে আটক করার পর তাদের বিরূদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য কয়রা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’

LEAVE A REPLY