গাজীপুরের ৪ সন্তানের জননী গৃহবধকে খুন করে লাশ গুম, স্বামী আটক

আপডেট: নভেম্বর ৬, ২০১৯
0

গাজীপুর সংবাদদাতাঃ পারিবারিক কলহের জেরে গাজীপুরে ৪ সন্তানের জননী এক গৃহবধূকে গলাটিপে হত্যাকরে লাশ ড্রেনেজের মধ্যে লুকিয়ে রেখেছে তার পাষন্ড স্বামী।নিহতের নাম জোসনা বেগম(৪৫)। নিঁখোজের ৩দিনপর বুধবার বিকেলে র‌্যাব সদস্যরা নিহতের স্বামী রাজমিস্ত্রী আব্দুল কাদিরকে (৫৫) আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের পর জোসনা বেগমের অর্ধগলিত লাশটি উদ্ধার করেছে।

র‌্যাব-১ ও পুলিশ জানায়,রাঙ্গামাটি জেলার লংগধু থানার উত্তর সোনাই গ্রামের আব্দুল কাদির তার স্ত্রী জোসনা বেগম ও ৪ সন্তান নিয়ে গাজীপুর মহানগরের দক্ষিন সালনা এলাকার মোল্লা পাড়া শাহিনুরের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। গত ৩ নবেম্বর থেকে জোসনা বেগম নিখোজ হয়। ওই নিখোজের ঘটনায় বুধবার নিহতের ছেলে গাজীপুর সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করে এবং র‌্যাব-১ গাজীপুর কোম্পানী কমান্ডার বরাবর ভিকটিমকে খুজে পেতে সহায়তার জন্য একটি অভিযোগ দেয়া হয়।

ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে র‌্যাব-১ এর কোম্পানী কন্ডার আব্দুল্লাহ আলমামুনের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল বুধবার বিকেলে নিখোজ জোসনা বেগমের স্বামী আব্দুল কাদিরকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাবাদে নিজের স্ত্রীকে হত্যার কথা র‌্যাবের নিকট স্বীকার করে আব্দুল কাদির।পরে র‌্যাব সদস্যরা তাকে নিয়ে মহানগরের শালনা ব্রীজের উত্তর পাশে নীচে পানির ড্রেনের ভিতর হইতে জোসনা বেগমের অর্ধগলিত লাশ উদদ্ধার করে।র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে কাদির জানায় গত ২নবেম্বর শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়।

তার পরদিন রবিবার সকালে কাজের কথা বলে জোসনাকে নিয়ে তার স্বামী মহানগরের শালনা ব্রীজের কাছে যায়। এক পর্যায়ে জোসনা বেগমকে শ^াস রোধ করে হত্যার পর তার লাশ ড্রেনের পানির মধ্যে লুকিয়ে রাখে।
পরে লাশ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করার পর পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য লাশ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

LEAVE A REPLY