ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র সময় অর্থের জন্য সহায়তা বা উদ্ধার কার্যক্রম আটকে না থাকে – মেয়র সাদিক

আপডেট: নভেম্বর ৯, ২০১৯
0

বরিশাল ব্যুরো: অর্থের জন্য যেন কোন ধরনেসর সহায়তা বা উদ্ধার কার্যক্রম আটকে না থাকে সেজন্য বরিশাল সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরদের নির্দেশ দিয়েছেন মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। পাশাপাশি মহানগর আওয়ামীলীগের এই যুগ্ম সম্পাদক ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের সিটি কাউন্সিলরদের সাথে সমন্বয় করে দুর্যোগ মোকাবিলা কাজ করার আহবান জানান। শনিবার (০৯ নভেম্বর) বেলা ১ টায় বরিশাল নগরের সদররোডস্থ এ্যানেক্স ভবনের চতুর্থ তলার সভাকক্ষে দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রস্তুতিমূলক সভায় তিনি এ কথা বলেন । এসময় আরো বলেন, চোখের সামনে কোন দুর্যোগ দেখলে কারো নির্দেশনার অপেক্ষা এবং অর্থের জন্য অপেক্ষা করা যাবে না। পকেট থেকে খরচ করে কাজ এগিয়ে নিবেন, পরবর্তীতে এগুলো দিয়ে দেয়া হবে। এসময় তিনি বলেন, নদী তীরবর্তী স্থানে জনসাধারনের আশ্রয়ের জন্য বিদ্যালয়গুলো খোলা রাখা হয়েছে। যেখানে বিকেলের মধ্যে ঝুকিপূর্ণ বা সম্ভাব্য ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে এমন এলাকার বাসিন্দাদের দ্রুত আশ্রয় নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। তবে বিশেষ ব্যবস্থায় গর্ভবতী নারী, প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক মানুষদের আশ্রয় কেন্দ্রে আগেভাগেই নেয়া হবে। যাতে দুর্যোগ শুরু হওয়ার সময় তারা কোন ধরনের বিপদে না পরেন। এক কথায় দুর্যোগ মোকাবিলায় আমরা সকল প্রস্তুতি হাতে নিয়েছি। বিশেষ করে আমাদের কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য, পরিচ্ছন্নতা, বিদ্যুৎ ও পানি শাখার কর্মকর্তা কর্মচারীরা ২৪ ঘন্টা দায়িত্ব পালন করবেন। সভায় সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাইল হোসেন জানান, বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়রের নির্দেশে শুক্রবার থেকে নগরে দুর্যোগ মোকাবিলায় সতর্ক ও সচেতনতামূলক প্রচারনা চালানো হচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা এরইমধ্যে পর্যাপ্ত শুকনো খাবার, পানি বিশুদ্ধ করন খাবার, স্যালাইন সরবরাহে রেখেছি। বিকল্প বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিশ্চিত করনের লক্ষে জেনারেটর মোমবাতি ও মশা রোধে কয়েলের ব্যবস্থা করা হয়েছে।পাশাপাশি একটি কন্ট্রোল রুম ও পাচটি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। এছাড়া বাদ আসর নগরেরর বিভিন্ন মসজিদে এবং মন্দির ও গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনার জন্য আয়োজন করার জন্য সকলের প্রতি সিটি মেয়র আহবান জানিয়েছেন। এসময় বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন, কোতয়ালী মডেল থানার এসি রাসেল আহমেদ সহ বিভিন্ন কর্মকর্তারা উপস্থি ছিলেন। পরে তিনি বরিশাল নৌ-বন্দর এলাকা সহ নদী তিরবর্তী এলাকার সাধারন মানুষের খোঁজ নেন এবং তাদেরকে ঝড়ের পূর্বেই নির্ধারিত মানুষকে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে চলে যাবার জন্য আহবান জানান।

LEAVE A REPLY