তিক্ততম সমাধান তিন তালাক:‌ ভারতীয় শীর্ষ আদালত

আপডেট: মে ১২, ২০১৭

দেশ জনতা ডেস্ক: বিবাহ বিচ্ছেদ সংক্রান্ত সমস্যায় ‘‌তিন তালাক’‌ সবচেয়ে খারাপ এবং অনভিপ্রেত সমাধান। তিন তালাক এবং ‘‌নিকাহ হালালা’‌র সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে শুনানির দ্বিতীয় দিনে মন্তব্য সুপ্রিম কোর্টের। এই মামলায় আদালত বান্ধব হয়েছেন প্রাক্তন আইনমন্ত্রী সলমন খুরশিদ। খুরশিদকে উদ্দেশ্য করে বিচারপতিরা একের পর এক প্রশ্ন করতে থাকেন।
প্রধান বিচারপতি জেএস খেহরের প্রশ্ন, ‘‌তিন তালাক কি কেবল প্রতীকি আচরণবিধি নাকি ধর্মের মৌল আচরণবিধি?‌ কোনও একটা পাপের প্রথা কি শরিয়তের অংশ হতে পারে?‌ কিছু মানুষ মনে করেন মৃত্যুদণ্ড পাপাচার। কিন্তু সেটাকেই আইনি বৈধতা দেবেন কী করে?‌’‌ যার উত্তরে খুরশিদ বলেন, ‘‌ভারতের মিশ্র সংস্কৃতির কারণে ইসলাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আদালতের ইসলামকে মানবিক করার উদ্যোগের প্র‌য়োজন নেই। তিন তালাক ইসলামে হস্তক্ষেপ করছে না, এটা সহায়তা করছে।’‌
আদালতে অনেকেই জানিয়েছে, তারা তিন তালাক চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে। কোনও সংশোধন হলে আপনা থেকেই হবে। যার সমালোচনা করে বিচারপতি ফলি এস নরিম্যান বলেছেন, ‘‌তত্ত্ব এবং অনুশীলনের মধ্যে তফাৎটা বোঝা উচিত। একদিকে বলবেন ধর্মে সংস্কারের দরকার নেই। তারপর আমাদেরই বলবেন সংস্কার করে দিন যাতে ঈশ্বরের হাতে শাস্তি পেতে না হয়।’‌
খেহর খুরশিদকে জিজ্ঞাসা করেন, ভারতের বাইরে তিন তালাকের অস্তিত্ব রয়েছে কিনা?‌ খুরশিদ বলেন, নেই। অনেক মুসলিম দেশই তিন তালাক নিষিদ্ধ করেছে।
তিন তালাকের শিকার এক মহিলার হয়ে প্রবীণ আইনজীবী রাম জেঠমালানি বলেন, এই প্রথা অসাংবিধানিক। মহিলারা যাতে লিঙ্গগত কারণে বৈষম্যের শিকার না হন তা দেখা উচিত।