নারায়ণগঞ্জে শামীম ওসমানও আইভী নির্ভর আওয়ামী লীগ!

আপডেট: জুন ২৭, ২০১৯
0

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ : বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ গত ২৩ জুন ৭০ বছর অতিবাহিত করেছে। বলা হয়ে থাকে, আওয়ামীলীগ মানেই নারায়ণগঞ্জের ইতিহাস। স্বাধীকার আন্দোলনের অন্যতম সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জন্ম এ নারায়ণগঞ্জ জেলাতেই। কিন্তু এই জন্মস্থান নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ বর্তমানে সাংগঠনিকভাবে তেমন একটা শক্তিশালী হতে পারছে না। মূলদল সহ তাদের অঙ্গসংগঠগুলোর কোনটিরই থানা কমিটির নবায়ন নেই দীর্ঘ প্রায় ১ যুগ ধরে। সেই সাথে অনেকগুলোর মূল কমিটিও মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। ফলে সাংগঠনিকভাবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ শক্তিশালী না হয়ে ব্যক্তিকেন্দ্রীক হয়ে পড়ছে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী নির্ভর হয়ে গেছে। সাংগঠনিক কার্যক্রমে তৃণমূল নেতাকর্মীদের তেমন একটা উপস্থিতি না থাকলেও শামীম ওসমান ও সেলিনা হায়াৎ আইভীর ব্যক্তিকেন্দ্রিক শোডাউনে ঠিকই নেতাকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু সেই উপস্থিতি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ ও মহানগর আওয়ামীলীগের ব্যানারে আয়োজিত কর্মসূচিতে লক্ষ্য করা যায় না।
সর্বশেষ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ২৩ জুন রোববার নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে প্রদ্ধাঞ্জলী ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এদিন সকালে ২ নং রেলগেইট আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে প্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের তেমন একটা উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগেও ২ নং রেলগেইট আওয়ামীলীগের কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করা হয়। মহানগর আওয়ামীলীগের আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচিতেও নেতাকর্মীদের তেমন একটা উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি। এর আগেও নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মসূচিতেও নেতাকর্মীদের সরব উপস্থিতি থাকে না। অথচ টানা তিন মেয়াদ ধরে ক্ষমতায় রয়েছে তারা। তবে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের এসকল কর্মসূচিতে যদি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী উপস্থিত থাকেন তাহলে ঠিকই নেতাকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি থাকে।
তবে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আগামী ২৯ জুন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে এবং আগামী ৩০ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য র‌্যালীর আয়োজন করা হবে। আর এই র‌্যালীতে নেতাকর্মীদের উপস্থিতিই প্রমাণ মিলবে ক্ষমতায় থাকাবস্থায়ও জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ কতটা শক্তিশালী। কারণ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ উভয়েই চাচ্ছে নেতাকর্মীদের ব্যাপক সমাবেশ ঘটাতে।
অন্যদিকে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকাকালিন সময়ে বিভিন্ন জনদুর্ভোগে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দকে কোন ভূমিকা রাখতে দেখা যায়নি। সকল সমস্যার সমাধানে প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকেই ভূমিকা পালন করতে হয়। পাশাপাশি এই প্রভাবশালী দুই নেতার বাইরে গিয়ে আওয়ামীলীগের দলীয় কর্মসূচিও অনেক সময় পালিত হয় না। সর্বশেষ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চালুকৃত সরকারি পরিবহণ সংস্থা বিআরটিসির বাস নিয়ে সৃষ্ট সমস্যাতেও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীগের কোন ভূমিকা দেখা যায়নি।
জানা যায়, টানা দুই বছর বন্ধ থাকার পর গত ২২ মে রাজধানী ঢাকার গুলিস্তান স্টেডিয়াম মার্কেটের ২নং গেটের কাউন্টার থেকে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে বিআরটিসি এসি বাস চলাচলের উদ্বোধন করেন। বাস চালুর পর একদিন ভালভাবে চললেও গত ২৫ মে শনিবার সকালে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের চাষাঢ়ায় শীতল ও হিমাচল পরিবহনের কাউন্টারের মাঝামাঝি স্থানে অস্থায়ী কাউন্টার বসানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু এতে বাস ও মিনিবাস পরিবহন মালিক সমিতির লোকজন এসে বাধা দেয়। এর আগে ২৪ মে শুক্রবারও একই পন্থায় কয়েক দফা বাধা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন বিআরটিসি নারায়ণগঞ্জ ডিপোর কর্মকর্তারা।
আর এই ঘটনায় নারায়ণগঞ্জে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের কঠোর বক্তব্যে শেষ পর্যন্ত ভাংচুরকারীরা সতর্ক হয়ে যান। সেই সাথে বিআরটিসির বাস কাউন্টারগুলোও নতুন করে বসানো হয়। যদিও ভাংচুরকারীরা এখন পর্যন্ত গ্রেফতার কিংবা তাদের বিরদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তবে এই পরিস্থিতির উত্তরণে সরকারি দল হিসেবে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতাদের কোন ভূমিকা রাখতে দেখা যায়নি। যা নিয়ে স্বয়ং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
গত ২৯ মে বুধবার সকালে রাজধানী ঢাকায় ওবায়দুল কাদেরের সরকারি বাসভবনে সৌজন্যে সাক্ষাৎকার পর্বে জেলা আওয়ামীলীগের নেতাদের উদ্দেশ্য পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, নারায়ণগঞ্জে এত সুন্দর বাস দিয়েছি। কিন্তু কারা এই বাসগুলো চলাচলের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করছে। বাস কাউন্টার ভাংচুর করছে। এর পিছনের কারা জড়িতে রয়েছে। এগুলো সঠিক হচ্ছে না। বিআরটিসি একটি সরকারি পরিবহন সংস্থা। এই বাস থেকে সাধারণ মানুষ সেবা পেয়ে থাকলে সরকারেরই সুনাম হবে। সৌজন্য সাক্ষাৎপর্বে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী সহ জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগেও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন জনভোগান্তিতেও নারায়গঞ্জ আওয়ামীলীগের নেতবৃন্দ কোন বক্তব্য কিংবা মন্তব্য করতে শুনা যায়নি। সবসময় নিজেদের রাজনীতি নিয়েই তারা বেশি ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করে আসছেন। শামীম ওসমান বলয় ও আইভী বলয়ে বাইরে গিয়ে তারা কোন কথা বক্তব্য দেন না। তাদের বক্তব্যে কখনই জনদুর্ভোগ কিংবা জনদুর্ভোগ দূরীকরণে কোন নির্দেশনামূলক কথা উঠে আসে না।

এম আর কামাল

LEAVE A REPLY