পদত্যাগ না করলে লাথি মেরে নামাতে হবে – ড. কামাল

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০
0

শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির হলে ‘এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এ কথা বলেন।
গণফোরামের এ সভাপতি বলেন, ১৬ কোটি মানুষের অধিকার, আমাদের সকলের অধিকার দেশে গণতন্ত্র থাকবে। দেশে প্রকৃত অর্থে নির্বাচিত ব্যক্তিরা দেশ পরিচালনা করবে। সেখানে আজকে আমাদের সহ্য করতে হচ্ছে, দেশে নির্বাচনের নামে প্রহসন হয়। যারা নির্বাচিত না তারা রাষ্ট্রক্ষমতাকে জবরদখল করে চালিয়ে যাচ্ছে। এখানে জনগণ আজ বঞ্চিত। আজকের সকল মানুষের পক্ষে আমাদের বলতে হচ্ছে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমাদের নিজেদের অধিকার কেড়ে নিতে হবে।

বক্তব্য চলাকালে ডঃ কামাল হোসেনের পাশের চেয়ারে বসা আ স ম রব বলেন, স্যার রাজবন্দিদের মুক্তির কথা একটু বলে দেন, এ সময় ডঃ কামাল বলেন, রাজবন্দীর মুক্তির কথা এখানে হবে এ কথা শুনতে কেমন লাগে। স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এখানে রাজবন্দী।
তিনি বলেন, বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সভা করতে হবে দাবি করতে হবে এটা অকল্পনীয়।

ডঃ কামাল হোসেন বলেন, সরকার দেশ চালাচ্ছে চালাক তবে আমাদের যে মালিকের ভূমিকা সেটা রাখতে হবে। কেননা এটা আমরা পেয়েছি খুব মূল্য দিয়ে।
তিনি বলেন, মানুষকে বঞ্চিত করে স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করবে এটা প্রহসন। অর্থাৎ যারা প্রহসন করে এসেছে তাদের সময় এসেছে সহজ ভাষায় বলার ‘সরে দাঁড়াও’। কারণ তোমরা জনগণকে বঞ্চিত করে স্বৈরতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে আসছো, যেভাবে দুর্নীতি, কু-শাসন, যেভাবে মানুষের বিরুদ্ধে অত্যাচার চলছে এটা মানুষ আর মেনে নেবে না। আমি বলব, তোমরা সড়ে দাঁড়াও না হলে, মানুষের প্রতি, স্বাধীনতার প্রতি এটা অসম্মান জানানো হচ্ছে। যারা মুক্তিযুদ্ধে জীবন দিয়েছিল তাদের সম্মান জানানো হচ্ছে।
ড. কামাল বলেন, আমি মনে করি এ ধরনের সভা না আমাদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনকে সামনে রেখে মাঠে নামবো এবং এটা অর্জন করে ছাড়বো।

কিছুক্ষন পর পাশ থেকে একজন সরকারের পদত্যাগের কথা জানালে তিনি বলেন,এদের লাথি মেড়ে বের করে দিতে হবে। এই যে পদত্যাগ, পদত্যাগ পদত্যাগ না করলে কি করতে হবে? তখন সামনে দর্শক সাড়িতে থেকে একজন বলেন, এদের লাথি মেড়ে বের করে দিতে হবে। তখন তিনি বলেন, গুড। এরপর তিনি বলেন, এসব ভাষায় না গিয়ে তাদের অন্তত হাত ধরে রাস্তায় নামে দিতে হবে।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক এবং ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ২ বৎসর কারাবাসের প্রতিবাদে ও মুক্তির দাবিতে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়।

ড. কামাল হোসেন বলেন,

খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সভা করতে হবে দাবি করতে হবে এটা অকল্পনীয় বললেন ড. কামাল

শিমুল মাহমুদঃ শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির হলে ‘এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এ কথা বলেন।
গণফোরামের এ সভাপতি বলেন, ১৬ কোটি মানুষের অধিকার, আমাদের সকলের অধিকার দেশে গণতন্ত্র থাকবে। দেশে প্রকৃত অর্থে নির্বাচিত ব্যক্তিরা দেশ পরিচালনা করবে। সেখানে আজকে আমাদের সহ্য করতে হচ্ছে, দেশে নির্বাচনের নামে প্রহসন হয়। যারা নির্বাচিত না তারা রাষ্ট্রক্ষমতাকে জবরদখল করে চালিয়ে যাচ্ছে। এখানে জনগণ আজ বঞ্চিত। আজকের সকল মানুষের পক্ষে আমাদের বলতে হচ্ছে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমাদের নিজেদের অধিকার কেড়ে নিতে হবে।

বক্তব্য চলাকালে ডঃ কামাল হোসেনের পাশের চেয়ারে বসা আ স ম রব বলেন, স্যার রাজবন্দিদের মুক্তির কথা একটু বলে দেন, এ সময় ডঃ কামাল বলেন, রাজবন্দীর মুক্তির কথা এখানে হবে এ কথা শুনতে কেমন লাগে। স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এখানে রাজবন্দী।
তিনি বলেন, বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য সভা করতে হবে দাবি করতে হবে এটা অকল্পনীয়।

ডঃ কামাল হোসেন বলেন, সরকার দেশ চালাচ্ছে চালাক তবে আমাদের যে মালিকের ভূমিকা সেটা রাখতে হবে। কেননা এটা আমরা পেয়েছি খুব মূল্য দিয়ে।
তিনি বলেন, মানুষকে বঞ্চিত করে স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করবে এটা প্রহসন। অর্থাৎ যারা প্রহসন করে এসেছে তাদের সময় এসেছে সহজ ভাষায় বলার ‘সরে দাঁড়াও’। কারণ তোমরা জনগণকে বঞ্চিত করে স্বৈরতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে আসছো, যেভাবে দুর্নীতি, কু-শাসন, যেভাবে মানুষের বিরুদ্ধে অত্যাচার চলছে এটা মানুষ আর মেনে নেবে না। আমি বলব, তোমরা সড়ে দাঁড়াও না হলে, মানুষের প্রতি, স্বাধীনতার প্রতি এটা অসম্মান জানানো হচ্ছে। যারা মুক্তিযুদ্ধে জীবন দিয়েছিল তাদের সম্মান জানানো হচ্ছে।
ড. কামাল বলেন, আমি মনে করি এ ধরনের সভা না আমাদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনকে সামনে রেখে মাঠে নামবো এবং এটা অর্জন করে ছাড়বো।

কিছুক্ষন পর পাশ থেকে একজন সরকারের পদত্যাগের কথা জানালে তিনি বলেন,এদের লাথি মেড়ে বের করে দিতে হবে। এই যে পদত্যাগ, পদত্যাগ পদত্যাগ না করলে কি করতে হবে? তখন সামনে দর্শক সাড়িতে থেকে একজন বলেন, এদের লাথি মেড়ে বের করে দিতে হবে। তখন তিনি বলেন, গুড। এরপর তিনি বলেন, এসব ভাষায় না গিয়ে তাদের অন্তত হাত ধরে রাস্তায় নামে দিতে হবে।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক এবং ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ২ বৎসর কারাবাসের প্রতিবাদে ও মুক্তির দাবিতে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দপ্তর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম মিন্টুর পরিচালনায়-
এতে আরো বক্তব্য রাখেন, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি এড. সুব্রত চৌধুরী
বিকল্পধারার চেয়ারম্যান অধ্যাপক নুরুল আমিন ব্যাপারি। গণ দলের সভাপতি গোলাম মাওলানা, এতে আরো বক্তব্য রাখেন, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি এড. সুব্রত চৌধুরী
বিকল্পধারার চেয়ারম্যান অধ্যাপক নুরুল আমিন ব্যাপারি। গণ দলের সভাপতি গোলাম মাওলানা,

গনফোরামের নির্বাহী সভাপতি এডভোকেট মহসিন রশীদ, গনফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট জগলুল হায়দার আফ্রিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ,নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহিদুল্লাহ কায়সার, সদস্য মমিনুল ইসলাম, ফজলুল হক সরকার, জেএসডির কার্যকরী সভাপতি সা ক ম আনিছুর রহমান খান, বিকল্প ধারা বাংলাদেশে মহাসচিব এডভোকেট শাহ আহমেদ বাদল, জাসাসের সহসভাপতি নায়িকা শায়লা প্রমূখ।

LEAVE A REPLY