পল্লবী ইষ্টার্ণ হাউজিং দ্বিতীয় পর্বের M-N Block এর বৈধ বাসিন্দাদের উচ্ছেদের অপতৎপরতা বন্ধ করার আহবান|

আপডেট: জুন ২৬, ২০১৯
0

মিরপুর পল্লবী ইষ্টার্ণ হাউজিং দ্বিতীয় পর্বের M-N Block এর প্রায় ৬০০ প্লট এর ২৪ একর ভূমি থেকে বৈধ বাসিন্দাদের উচ্ছেদের অপতৎপরতা বন্ধ করার আহবান|

পল্লবী ইষ্টার্ণ হাউজিং দ্বিতীয় পর্বের M-N Block এর ১৮০০ এর অধিক পরিবার পক্ষ থেকে আজ অনুষ্ঠেয় মানব বন্ধনে প্লট মালিকদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক মো: জয়নুল আবেদীন, অধ্যাপক মো: মফিজুর রহমান খান এবং শাহ আলম তালুকদার | ১৯৮৭ সাল থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ে লটারী ও সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যমে মিরপুরে অবস্থিত বিখ্যাত ইষ্টার্ণ হাউজিং পল্লবী দ্বিতীয় পর্বের M-N Block এ সরকারের যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করে প্লট খরিদ করা হয়| রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ইষ্টার্ণ হাউজিং লিমিটেড কে ছাড়পত্র নবায়ন করেছে এবং সর্বশেষ ০৪/০১/২০১৬ সালে প্রকল্পটির চূড়ান্ত (সংশোধিত ও সম্প্রসারিত) লে-আউট প্ল্যান অনুমোদন করে।

অনেকে রাজউক এর প্ল্যান পাশ করে বহুতল ভবন নির্মাণ করেছেন এবং অনেকের নির্মাণ কাজ চলমান আছে, অনেকে মাটি পরীক্ষা করে প্ল্যান পাসের জন্য রাজউক দপ্তরে কাগজপত্র জমা দিয়েছেন। সীমানা প্রাচীর সহ কম বেশি প্রায় সকল প্লটে নির্মাণ কাজ চলমান আছে। প্রকল্পটিতে বর্তমানে ওয়াসার পানির লাইন, পয়নিস্কাশন লাইন ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিদ্যমান আছে।

গত ০৬/১২/২০১৮ ও ১০/১২/২০১৮ স্মারক নং- 25.39.0000.033.36.003.18-1073 এবং ১০/১২/১৮ইং স্মারক নং-25.39.0000.033.36.002.18-1084 রাজউক কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনাল(BUP)কে এর বাহ্যিক সম্প্রসারণ এর জন্য ২৪ একর ভূমি “জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প” দেখিয়ে অধিগ্রহণের ছাড়পত্র (NOC) প্রদান করে| অথচ BUP এর বাহ্যিক সম্প্রসারণ সরকারি গ্যাজেট কর্তৃক প্রকাশিত কোন জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প নয়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে ঢাকার বাইরে জায়গা দেয়া হয়েছে। তাছাড়া BUP কে তার চাহিদা অনুযায়ী ইতোপূর্বে ঢাকা জেলা প্রশাসক যাচাই বাছাই পূর্বক এই একই প্রকল্প থেকে ০৪ একর জমি অধিগ্রহণ করে দিয়েছে। উল্লেখ্য যে, BUP এর উত্তর দিকে অনেক পরিত্যাক্ত জমি রয়েছে যা বিশ্ববিদ্যালয় চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে বলেছিলেন, উন্নয়ন প্রকল্পে মানুষ যেনো ক্ষতিগ্রস্থ না হয় কিন্তু এই অধিগ্রহনের ফলে অনেক পরিবার তার সর্বশেষ সঞ্চয় দিয়ে কেনা একমাত্র বাস্তুভিটা খানি হারাতে বসেছে। তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং তাঁর কাছে তাদের আর্জি পেশ করেন যেন শেষ স্বম্বলটুকু কেড়ে নিয়ে হাজার হাজার পরিবারকে বাস্তুহারা করা না হয় |

LEAVE A REPLY