বাবরী মসজিদ ভাগ করতে চায় সুপ্রিম কোর্ট !

আপডেট: মার্চ ৯, ২০১৯
0

বাবরী মসজিদ ভাগ করতে চায় সুপ্রিম কোর্ট !
ভারতসহ দক্ষিণএশিয়ার সব থেকে স্পর্শকাতর জমি বিবাদ— অযোধ্যার রাম জন্মভূমি-বাবরি মসজিদ মামলা আরও এক বার মধ্যস্থতার মাধ্যমে মেটাতে উদ্যোগী হল সুপ্রিম কোর্ট।

প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বে পাঁচ বিচারপতির সাংবিধানিক বেঞ্চ আজ এই লক্ষ্যে তিন সদস্যের প্যানেল তৈরি করেছে। প্যানেলের মাথায় থাকবেন প্রাক্তন বিচারপতি এফ এম কলিফুল্লা। বাকি দুই সদস্য হলেন, আধ্যাত্মিক গুরু শ্রীশ্রী রবিশঙ্কর ও প্রবীণ আইনজীবী শ্রীরাম পঞ্চু।

কোর্টের নির্দেশ, এক সপ্তাহের মধ্যে মধ্যস্থতা শুরু করে আট সপ্তাহের মধ্যে তা সেরে ফেলতে হবে। অর্থাৎ, লোকসভা ভোটের প্রচার যখন তুঙ্গে উঠবে, ঠিক তখনই অযোধ্যা-বিবাদ নিষ্পত্তির চেষ্টা হবে। ফলে প্রশ্ন উঠেছে, এই মধ্যস্থতা কি রাজনীতিতেও প্রভাব ফেলবে না? বিশেষ করে বিতর্কিত ভূমি যেখানে অবস্থিত, সেই ফৈজাবাদে বসেই যখন মধ্যস্থতার প্রক্রিয়া চলবে।

সুপ্রিম কোর্ট অবশ্য গোটা সালিশি প্রক্রিয়া গোপন রাখার নির্দেশ দিয়েছে। হিন্দু ও মুসলমান সংগঠনগুলির কেউই এ নিয়ে বাইরে মুখ খুলতে পারবে না। আর বিজেপি সূত্রের দাবি, তারা এমনিতেই রামমন্দিরকে ভোটের ইস্যু করতে চাইছে না। কারণ উগ্র হিন্দুত্বের ধুয়ো বিশেষ প্রভাব ফেলছে না। তার থেকে পুলওয়ামার পরে জাতীয়তাবাদী আবেগ বেশি কাজে লাগছে। রামমন্দির আবেগ সত্যিই কাজে লাগলে, সুপ্রিম কোর্টে খারিজ হওয়ার ঝুঁকি নিয়েও মোদী সরকার অধ্যাদেশ আনত।

কংগ্রেস নেতা সলমন খুরশিদেরও বক্তব্য, ‘‘এক দিকে গোপন মধ্যস্থতা, অন্য দিকে তার জন্য আট সপ্তাহ সময় বেঁধে দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট এক ঢিলে দুই পাখি মেরেছে। নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় একে কেউ কাজে লাগাতে পারবে না। যা হবে ভোটের পরে।’’

বর্তমান সাংবিধানিক বেঞ্চের বিচারপতিরা আগেই বলেছেন, তাঁরা অযোধ্যার ২.৭৭ একর জমি ঘিরে লড়াইকে নিছক জমির মালিকানা নিয়ে বিবাদ হিসেবে দেখতে চান না। এখানে ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রশ্ন জড়িত।
তাই মধ্যস্থতার মাধ্যমে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্পর্কের ক্ষত মেরামতের চেষ্টা করতে চান। যদিও আইনজীবীদের মতে, মধ্যস্থতার ক্ষেত্রে সব সময়ই হিন্দু পক্ষের পাল্লা ভারী থাকার সম্ভাবনা বেশি। কারণ প্রথমেই হিন্দু পক্ষ বিশ্বাসের প্রশ্নে চলে যান।

বিজেপি নেত্রী উমা ভারতীর বক্তব্য, তিনি সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে সম্মান করেন। কিন্তু রামকে তাঁর জন্মস্থান থেকে কেউ হঠাতে পারবে না। সেখানেই রামমন্দির তৈরি করতে হবে। আইনজীবীরা বলছেন, হিন্দুরা এ হেন অনড় অবস্থান নিলে মুসলিম শিবিরের পক্ষে বাবরি মসজিদ নিয়ে পিছু হটা ছাড়া কার্যত আর সমঝোতার রাস্তা খোলা থাকে না।

LEAVE A REPLY