ব্যারিস্টার মইনুলের ৫ মাসের জামিন

আপডেট: অক্টোবর ২১, ২০১৮

ব্যারিস্টার মইনুলের ৫ মাসের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। বিচারপতি আব্দুল হাফিজ এবং মহিউদ্দিন শামীমের নেতৃ্ত্বে একটি ডিভিশন বেঞ্চ এ জামিন মঞ্জুর করেছেন।

আদালতে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রাফি আহমেদ। তার সঙ্গে ছিলেন এম মাসুদ চৌধুরী ও স্বপন দাস। রাষ্ট্রপক্ষ জানিয়েছে তারা এ জামিন আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

এর আগে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টির করা মানহানির মামলায় সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূর।
একইদিনে

নারী সাংবাদিককে কটূক্তির অভিযোগে জামালপুর আদালতে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে ২০ হাজার কোটি টাকার মানহানির মামলা হয়েছে।

এ মামলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে ওই আদালত।

আজ রোববার দুপুরে জামালপুর সদর সিআর আমলী আদালতে এ মামলাটি দায়ের করেন জামালপুর জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক ফারজানা ইয়াসমিন লিটা

মামলাটি আমলে নিয়ে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দিয়েছেন সদর সিআর আমলী আদালতে ম্যাজিস্ট্রেট সোলায়মান কবীর।

এ মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ২০১৯ সালের ১৭ জানুয়ারি।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, গত ১৬ অক্টোবর রাত ১২টার দিকে ৭১ টেলিভিশনে ফারজানা রূপা উপস্থাপিত ‘৭১ এর জার্নাল’

নামক টকশোতে নারীনেত্রী, মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলে মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। যা মানহানিকর, শিষ্টাচারবহির্ভূত, নীতি-নৈতিকতা বিবর্জিত এবং সমগ্র নারী সম্প্রদায়ের প্রতি অবজ্ঞা ও মানহানিকর। এতে বাদী একজন নারী রাজনৈতিক নেত্রী হিসেবে চরমভাবে অপমানিত এবং মানহানিকর পরিস্থিতিতে নিপতিত হয়েছেন।

বিবাদীর এরূপ মন্তব্য তথা আচরণ বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে শান্তিযোগ্য একটি অপরাধ।