মাদ্রাসায় হামলার নিন্দা ও কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণার দাবি জানালেন আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী

আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২০
0

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেছেন, বি-বাড়িয়ার কান্দিরপাড়ের খতমে নবুওয়াত মাদরাসা দখলের উদ্দেশ্যে কাদিয়ানী সম্প্রদায়ের লোকজন গত মঙ্গলবার রাতের আঁধারে অতর্কিত সশস্ত্র হামলা চালিয়ে মাদ্রাসার বহু ছাত্রকে রক্তাক্ত জখম করেছে

। আমরা এই সন্ত্রাসী হামলার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি। একই সাথে এই হামলার সাথে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

আজ (১৫ জানুয়ারী) বুধবার এক বিবৃতিতে জমিয়ত মহাসচিব আরো বলেন, কাদিয়ানীদেরকে অমুসলিম ঘোষণার জন্য কয়েক যুগ ধরে এদেশের আলেম সমাজ ও তাওহিদী জনতা বার বার সারকারের কাছে দাবি জানিয়ে আসছে। কারণ, মির্জা গোলাম আহমদ কাদিয়ানীর অনুসারী আহমদিয়া সম্প্রদায় হযরত মুহাম্মদ (সা.)কে শেষ নবী মানে না। ইসলাম মতে কেউ খতমে নবুওয়াতের আক্বিদায় বিশ্বাসী না হলে নিজেকে মুসলমান দাবি করার অধিকার রাখে না।

কাদিয়ানীরা মুসলমান দাবি করে সাধারণ মুসলমানদেরকে বিভ্রান্ত ও ঈমানহারা করার মিশন চালাচ্ছে। এতে দেশের সামাজিক স্থিতিশীলতা এবং শান্তি-শৃঙ্খলার উপর হুমকি তৈরি হয়েছে। যার সর্বশেষ প্রমাণ মঙ্গলবার রাতের বি-বাড়ীয়ার হামলার ঘটনা।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, আমরা শান্তির পক্ষে। আমরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, বিভিন্ন ধর্মমতের মানুষের সামাজিক সহাবস্থান, সর্বস্তরে ইনসাফ ও শক্তিশালী রাষ্ট্র গড়তে চাই

। আমরা কখনো হামলা, ভাঙচুর, সাম্প্রদায়িক বিবাদ ও বিশৃঙ্খলায় বিশ্বাসী নই। তাই আমরা সরকারের কাছে আবারো দাবি পুনর্ব্যক্ত করছি যে, অবিলম্বে কাদিয়ানীদেরকে অমুসলিম ঘোষণা করা হোক। তারা যেন কোনভাবেই মুসলিম পরিচিতি ও ইসলামী পরিভাষা ব্যবহার করতে না পারে, আইন করে সেটা নিষিদ্ধ করা হোক। এতে করে কাদিয়ানীরা অমুসলিম পরিচয়ে অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের মতো বসবাস করতে পারবে।

অন্যদিকে সাধারণ মুসলানরাও ঈমানহারা হওয়ার ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাবে এবং নানা বিশৃঙ্খলা, অশান্তি থেকে জনগণ ও দেশ রক্ষা পাবে।
বিবৃতিতে জমিয়ত মহাসচিব সতর্ক করে বলেন, সরকার আমাদের এই ন্যায দাবি পুরণ না করলে গণমানুষের ক্ষোভ থেকে উদ্ভূত যে কোন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির দায় সরকারকেই বহন করতে হবে।

LEAVE A REPLY