মানুষ কেনো তার বৈধ অধিকারের জন্য ঘুষ দিবে?

আপডেট: জুলাই ২০, ২০১৯
0

আবু সালেহ আকন

আইন বাস্তবায়ন করতে হলে সবকিছুই ঠিকঠাক মতো চালাতে হয়।
আমি আইন তখনই মানবো, যখন বৈধ সকল সুযোগ-সুবিধা পাবো।

এই ধরুন, অনেক মানুষ আয়কর দেয় না। কেনো দেয় না জানেন? আয়কর আদায়ের জন্য যারা বসে আছে তাদের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী অসৎ। টাকা না দিলে ওখানকার মানুষ কথাও বলতে চায় না।

একজন তার কষ্টার্জিত টাকা দিবে, আর উল্টো হয়রানির শিকার হবে; এমন বোকা এখন আর নেই।
যে কারণে যতোক্ষণে মানুষ বাধ্য না হয়, ততোক্ষণে কেউ আয়কর দিতে আগ্রহ দেখায় না।
তেমনি সড়ক পরিবহন আইন নিয়ে আজকের এই জটিলতা।

গাড়ীর কাগজ নেই, ওকে গাড়ী ধরুন, চালককে জেল-জরিমানা দিন।
কোন আপত্তি নেই। কিন্তু কাগজ করতে গেলে বিআরটিএতে যে হয়রানির শিকার হতে হয়, তা কি আপনারা নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছেন?
বিআরটিএ’র অধিকাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারী অসাধু বলে অভিযোগ আছে।

টাকা দিলেই কাজ হয়ে যায়। টাকা না দিলে বছরের পর বছর ঘুরতে হয়।
কেনো মানুষ এই কষ্ট করতে যাবে? কেনো বৈধ অধিকারের জন্য ঘুষ দিবে? আগে এগুলো ঠিক করুন।
একজন মানুষ কাগজ করতে গেলে যাতে কোন ভোগান্তির শিকার না হন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে গেলে যাতে ভোগান্তিতে না পড়েন, হয়রানীর শিকার না হন; সেই ব্যবস্থা করুন।
দেখবেন কোন চালকই কাগজ-পত্র ছাড়া গাড়ী চালাবে না।
না হলে আপনারা যতো আইনই করুন, সেই আইন মানুষকে স্বস্তি দিবে না, উল্টো ভোগান্তি বাড়াবে।

যেমন এখন পরিবহন ধর্মঘট চলছে। আপনাদেরতো পাবলিক বাসে চলতে হয় না।
যারা পাবলিক বাসে চড়ে যাতায়াত করেন, তাদেরকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন, আজ কতোটা ভোগান্তির শিকার হয়েছেন তারা!

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক

সাবেক সভাপতি :বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন

LEAVE A REPLY