মিয়ানমার কিছুতেই রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চায় না: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট: জুন ৯, ২০১৯
0
file photo

মিয়ানমার কিছুতেই রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চায় না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আপনারা (সাংবাদিক) জানেন ভারত ও চীনের সঙ্গে আমাদের ভালো সম্পর্ক রয়েছে, এটা আমরা ধরে রাখতে চাই। এ দেশগুলোও মনে করে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক, তাদের সেখানেই ফিরে যাওয়া উচিত। তিনি বলেন, কিন্তু সমস্যা হচ্ছে মিয়ানমার কিছুতেই তাদের ফেরত নিতে চাচ্ছে না। তাছাড়া রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করা সংস্থাগুলোও চায় না তারা ফিরে যাক। আমরা যখন তাদের ফিরানোর উদ্যোগ নিয়েছি তখন তারা যাবো না বলে আন্দোলন করলো। এ আন্দোলনে কারা উসকানি দিলো, প্রশ্ন রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ডে ১১ দিনের সফর সম্পর্কে জানাতে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে দেয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বিকেল পাঁচটা ৭ মিনিটে তিনি বক্তব্য শুরু করেন, শেষ করেন সন্ধ্যা সোয়া ছয়টায়।

এর আগে গতকাল শনিবার সকালে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ত্রিদেশীয় সফরের উদ্দেশ্যে গত ২৮ মে প্রথমে জাপান যান প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড যান তিনি। ফিনল্যান্ডে পাঁচ দিনের সফর শেষে শুক্রবার সন্ধ্যায় হেলসিংকি থেকে দেশের উদ্দেশে যাত্রা করেন তিনি। এ সময় সুইডেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল ইসলাম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। দেশে ফেরার পথে প্রধানমন্ত্রী দোহায় কিছুক্ষণ যাত্রাবিরতি করেন।

প্রধানমন্ত্রী শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, সংশ্লিষ্ট সচিববৃন্দ এবং উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

পরে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে পৌঁছলে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতারা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। জাপানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে ২৫০ কোটি ডলারের ৪০তম অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিসট্যান্স (ওডিএ) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ‘দ্য ফিউচার অব এশিয়া’ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। তিনি সেখানে তার সম্মানে আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় যোগ দেন এবং জাপানের ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে অংশ নেন। এ ছাড়া গুলশানের হলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত জাপানি নাগরিকদের পরিবার এবং জাইকা সভাপতি শিনিচি কিতাওকা পৃথকভাবে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সফরের দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী ৩১ মে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদের আমন্ত্রণে পবিত্র মক্কা নগরীতে অনুষ্ঠিত ওআইসির ১৪তম সম্মেলনে যোগদান করেন।

প্রধানমন্ত্রী পবিত্র ওমরাহ পালন ও মহানবী হযরত মোহাম্মদের (সা) রওজা মোবারক জিয়ারত করেন। এর পর ৩ জুন ফিনল্যান্ড যান তিনি। সেখানে তিনি ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সউলি নিনিয়েস্তোর সঙ্গে বৈঠক করেন এবং তার সম্মানে অল ইউরোপীয় আওয়ামী লীগ ও ফিনল্যান্ড আওয়ামী লীগের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় যোগ দেন।

LEAVE A REPLY