মোদির জন্মদিনে ১৩ হাজার ফুট থেকে ঝাঁপ ‘‌ভক্তের’‌

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৮

দুঃসাহসিক স্টান্ট। তা অবশ্য কোনও প্রতিযোগিতার জন্য নয়। দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ৬৮ তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতেই চোখ ধাঁধানো একটি স্টান্ট করলেন শীতল মহাজন। সোমবারই ছিল মোদির জন্মদিন।

শিকাগো শহরের আকাশে তেরঙা জাম্পশুট পরে ১৩ হাজার ফুট উঁচু থেকে ঝাঁপ দিলেন মোদিভক্ত শীতল। তাঁর হাতে ধরা ছিল প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে জন্মদিনের শুভেচ্ছাবার্তা। পদ্মশ্রী পুরস্কারপ্রাপ্ত ভারতীয় স্কাই ডাইভারের দুঃসাহসিক এই কাজের ভিডিও তুলে রাখেন সতীর্থ সুদীপ কোদাভাতি।
পরে অবশ্য সোশ্যাল সাইটে সেই ভিডিও আপলোড করেন শীতল। অবশ্য শুধু জন্মদিনের শুভেচ্ছাবার্তাই নয়। ২০১৯ সালে সাধারণ নির্বাচনের জন্যও মোদিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শীতল। ‌‌

আরো পড়ুন: শেখ হাসিনা-মোদি ভিডিও কনফারেন্স বিকালে

আট দিনের ব্যবধানে আবারও ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার বিকাল পাঁচটায় দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে তিনটি নির্মাণ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।
বিকালে ভারতীয় এলওসি এর অর্থায়নে বাংলাদেশ রেলওয়ের ঢাকা-টঙ্গী সেকশনে তৃতীয় ও চতুর্থ ডুয়েলগেজ লাইন এবং টঙ্গী-জয়দেবপুর সেকশনে ডুয়েলগেজ ডাবল লাইন নির্মাণ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া শিলিগুড়ি নুমালিগড় তেল শোধনাগার থেকে বাংলাদেশের পার্বতীপুর পর্যন্ত ১৩০ কিমি ডিজেল সরবরাহর পাইপ লাইনের কাজের উদ্বোধন করবেন শেখ হাসিনা-মোদি।
মোদি দিল্লির তার সরকারি দপ্তর সাউথ ব্লক থেকে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকার গণভবন থেকে রিমোট সুইচ টিপে প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করবেন।

আরো পড়ুন:

বাংলাদেশের দুই বন্দর ব্যবহার করবে ভারত, চুক্তির খসড়া অনুমোদন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮

ভারত থেকে ভারতে পণ্য সরবরাহ করতে চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করবে ভারত। এ সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া আজ সোমবার মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় চুক্তির খসড়াটি মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে উপস্থাপন করেছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বেলা ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে দুপুর ২টায় মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম চুক্তির খসড়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ভারত আমাদের নিকটতম বন্ধুপ্রতীম দেশ। চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করে ভারত তাদের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে পণ্য সরবরাহ করবে।

সচিব বলেন, ‘ভারত মোংলা ও চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে তাদের উৎপাদিত পণ্য স্থলপথে ভারতের পূর্ব ও উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে সরবরাহ করতে আটটি রুট ব্যবহার করতে পারবে।’

ভারতের পণ্য পরিবহনের জন্য বাংলাদেশের সড়ক অবকাঠামো খাত উপযোগী কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে শফিউল আলম বলেন, ‘এগুলো সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা খতিয়ে দেখবেন।’
বাংলাদেশের বন্দর ও সড়ক ব্যবহারের জন্য ভারত বাংলাদেশকে কী পরিমাণ মাশুল ও শুল্ক দেবে তার হার এ চুক্তিতে নির্ধারণ করা হয়েছে কি না-জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘চুক্তিতে এ বিষয়ে যদিও বিস্তারিত কিছু নেই। তারপরও আমাদের শুল্ক বিভাগ এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক রীতি-নীতি ও চুক্তির বিষয়াদি পর্যালোচনা করে শুল্ক নির্ধারণ করবে।’

কতদিনের জন্য এ চুক্তি বলবৎ থাকবে- এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘প্রথমে পাঁচ বছর মেয়াদের জন্য এ চুক্তি করা হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে এ চুক্তি আরো পাঁচ বছরের জন্য নবায়ন করা হবে। তবে কোনো পক্ষ এ চুক্তি বাতিল করতে চাইলে ছয় মাসের নোটিশে তা বাতিল করতে পারবে।’