ষোড়শ সংশোধনীর আপিলে কামিয়াব হওয়ার আশা আইনমন্ত্রীর

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে রেখে সংবিধানের যে ষোড়শ সংশোধনী হয়েছিল তা অবৈধ বলে সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছিল তা হাই কোর্টের রায় আপিলে বদলে যাবে বলে সংসদ সদস্যদের আশা দিয়েছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।
বহুল আলোচিত এই রায় নিয়ে জাতীয় সংসদের সোমবার প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমামের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, আইনি পদক্ষেপে ষোড়শ সংশোধনী মামলায় আমরা কামিয়াব হব বলে আমার বিশ্বাস।

তার আগে ফখরুল ইমাম বলেছিলেন, হাই কোর্টে রায়ে বলা হয়েছিল ডিসফাংশনাল পার্লামেন্ট। হাই কোর্টে যেদিন রায় হয়েছিল সেদিন আপনি বলেছিলেন, ‘কিছুতেই এটা হতে পারে না। আমরা সুপ্রিম কোর্টে অবশ্যই জিতব’। শেষের অবস্থান কী আমি জানতে চাই?

প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আরও বলেন, আমি এই সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছিলাম, মামলার এক পক্ষ হিসাবে আমরা নিশ্চয় জিতব। রায় দেওয়ার মালিক হচ্ছে আপিল বিভাগ। তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বিচারপতিরদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে নিয়ে ২০১৪ সালে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধন এনেছিল আইনসভা, তবে হাই কোর্টের রায়ে তা বাতিল হয়ে যায়।

হাই কোর্টের রায়ে সংসদে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে আপিলের কথা বলে আইনমন্ত্রীকে পরিস্থিতি সামাল দিতে হয়েছিল।
গত জুলাই মাসে দেওয়া আপিলের রায়ে আপিল বিভাগ হাই কোর্টের রায়ই বহাল রাখে। গত অগাস্টে পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হলে প্রধান বিচারপতির কিছু পর্যবেক্ষণ দেখা যায়, যা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজনৈতিক অঙ্গন।

বিচারপতি এস কে সিনহা নিজের পর্যবেক্ষণের অংশে দেশের রাজনীতি, সামরিক শাসন, নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি, সুশাসন ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে সমালোচনা করেন।

ওই রায় এবং পর্যবেক্ষণ নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতা, এমনকি খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করেছেন।
অন্যদিকে সংসদের বাইরে থাকা বিএনপির নেতারা স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, এ রায় ‘ঐতিহাসিক’।

রায়ের চেয়ে পর্যবেক্ষণ নিয়েই আওয়ামী লীগের বেশি আপত্তি বলে দলের প্রবীণ নেতা ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের কথায় প্রকাশ পেয়েছে।

আইন কমিশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হকও আপিল বিভাগের এই রায়কে ‘ভ্রমাত্মক’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

এই রায়ের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ যে জটিলতার মধ্যে পড়েছে, সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে ওই রায় নতুন করে লিখতে আপিল বিভাগকে পরামর্শ দিয়েছেন আইন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান বিচারপতি আবদুর রশীদ।