সাড়ে তিন মাসে খালেদা জিয়ার কোন চিকিৎসাই হয়নি : সুস্পষ্ট মানবাধিকার লঙ্ঘন – ডা. রফিকুল ইসলাম

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৯
0

তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ এক বছরের বেশী সময় ধরে বিনা চিকিৎসায় অন্যায়ভাবে বন্দী করে রাখা হয়েছে।
গনতন্ত্রকে চিরতরে ধ্বংস করার পক্রিয়া হিসেবেই সরকারের এ রুপরেখা।

এমনকি জেল চিকিৎসকগনও তাকে নিয়মিত দেখতে যেতেন না বলে অভিযোগ শোনা যায়, যা সুসস্পষ্টতাই মানবধিকার লঙ্ঘন।

দেশ জনতা ডটকমকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি কথা বলেছেন বিএনপির বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সহ সম্পাদক ডা.মো .রফিকুল ইসলাম ।

সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর বয়স ৭৩ বৎসর।তিনি দেশের একজন সম্মানিত সিনিয়র সিটিজেন।

তিনি বর্তমানে বহু জটিল রোগে যেমন Rheumatoid arthritis, Carpal tunnel syndrome in left wrist, Diabetes, Osteoarthritis, Diabetes,Hypertension, Frozen Shoulder ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত।তার বাম হাত, বাম পায়ের ব্যাথা গুরুতর।
বর্তমানে তার movement অনেকটাই restricted।গত বছরের ৮ই নভেম্বর বিশেষগ্ঙ চিকিৎসকগন তাকে হাসপাতালে শেষ চিকিৎসা প্রদান করেন।
দীর্ঘ সারে তিন মাস তার কোন follow-up হয়নি।

বিনা চিকিৎসায় তাকে হত্যার উদ্দেশ্যেই কর্তৃপক্ষ এ ধরনের কাজ করছে। কিছুদিন আগে আদালতের নির্দেশে বিশেষগ্ম চিকিৎসকগন তাকে দেখতে যান।

তার অবস্হা এতটাই গুরুতর যে তারা কিছু পরীক্ষা করার এবং হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ প্রদান করেন।

অনতিবিলম্বে দেশনেত্রীর সুচিকিৎসার ব্যবস্হা কর্তৃপক্ষকে করতে হবে। অন্যথায় এর দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে।

বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে সরকারের প্রতিহিংসার পাখা সবসময় যেন ছটফট করছে। বারবার বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে সুচিকিৎসার জন্য ব্যক্তিগত চিকিৎসকবৃন্দ, দলের নেতৃবৃন্দ, দেশের নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ সোচ্চার থাকলেও সরকার এক অশুভ উদ্দেশ্যে তা অগ্রাহ্য করছে।

নির্মম সত্য যে, সরকার এক অশুভ উদ্দেশ্য নিয়েই দেশনেত্রীর সুচিকিৎসায় বাধা প্রদান করছে। সরকারের অভিপ্রায় নিয়ে জনগণের মধ্যে প্রবল সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে যে, আসলে দেশনেত্রীকে নিয়ে সরকার কী করতে চায়।

এই সরকার মর্যাদা, সহানুভূতি, অন্যের প্রতি সম্মান ও অনুশোচনা হারিয়ে ফেলেছে।

চরম মিথ্যাচার যাদের রাজনীতি ও রাষ্ট্রনীতির এজেন্ডা তারা একজন সম্মানীত জনপ্রিয় নেত্রীকে তো কষ্ট দেয়া ছাড়া ভাল কিছু করার শিক্ষা ওদের নেই। নির্বিচারে শক্তি প্রয়োগ করে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দমনে সব ব্যবস্থাই তারা করতে পারে। ।

অবিলম্বে দেশনেত্রীর সুচিকিৎসা এবং তাঁর ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের দিয়ে চিকিৎসা করানোর জোর দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় সরকারের সকল অমানবিক অবিচারের জন্য দায়ী থাকতে হবে।

LEAVE A REPLY