‘৯৬ ভাগ প্রতিবন্ধী নারী নির্যাতনের শিকার’

আপডেট: আগস্ট ২৪, ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশের শতকরা ৯৬ ভাগ প্রতিবন্ধী নারী মানসিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়। বিভিন্ন আইন ও নীতিমালায় প্রতিবন্ধী নারীদের অবস্থা বিশ্লেষণ শীর্ষক এক সেমিনারে এ তথ্য উঠে আসে।
উইমেন উইথ ডিজঅ্যাবিলিটিজ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের (ডব্লিউডিডিএফ) উদ্যোগে আজ বুধবার ডেইলি স্টার ভবনের আজিমুর রহমান কনফারেন্স হলে মুল প্রবন্ধে ডাব্লিউডিডিএফের নির্বাহী পরিচালক আশরাফুন নাহার মিষ্টি জানান শতকরা এক ভাগের কম সংখ্যক প্রতিবন্ধী মেয়ে শিশু স্কুলে যায়। কিন্তু প্রতিবন্ধীদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দক্ষতা উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ এখনো নেয়া হয়নি। আইন ও নীতিমালায় সামাজিক বৈষম্য, নিপীড়ন রোধ এবং প্রতিবন্ধিতা বিষয়টি উল্লেখ করা হলেও তার বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।
এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আক্তার এমপি প্রতিবর্ন্ধী নারীর সমাধিকার ও বৈষম্যমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় প্রতিবন্ধকতা উত্তরণের উপায়সমূহ আলোচনা করেন।
তিনি দেশীয় সব আইন ও নীতিসমূহ সার্বজনীন অর্থাৎ প্রতিবন্ধী নারীসহ সব ধরণের মানুষের উপযোগী করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশা ব্যক্ত করেন।

সেমিনারে উন্মুক্ত আলোচনায় প্যানেল আলোচকগণ বলেন, দেশে সড়ক, রেল, গণপরিবহন এবং গণস্থাপনায় প্রবেশগম্যতার অভাবে প্রতিবন্ধী নারীরা
বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, কারণ সামাজিক ও ধর্মীয় প্রেক্ষাপট বিবেচনায় এবং নারীত্ব ও প্রতিবন্ধিতার জন্য সমাজের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সমানভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে না। ফলে দেখা যায় শতকরা
৯৯ ভাগ প্রতিবন্ধী নারী দরিদ্রসীমার নিচে বসবাস করছে। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অসচেতনতার কারণেও সমাধিকার প্রাপ্তির অধিকার থেকে প্রতিবন্ধীরা বঞ্চিত হয়।
এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোঃ মিজানুর রহমান, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন, সমাজসেবা অধিদফতর, সমাজসেবা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক সৈয়দা ফেরদাউস আখতার, মহিলা আইনজীবী সমিতির নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সালমা আলী, উইমেন ফর উইমেনের প্রেসিডেন্ট জাকিয়া কে হাসান প্রমুখ।

সভাপতিত্ব করেন ডাব্লিউডিডিএফের চেয়ারপারসন শিরিন আক্তার।