‌’খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি না দিলে কঠোর আন্দোলনে যাবে বিএনপি ‘

আপডেট: মার্চ ১৫, ২০১৯
0

অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে এবং গণবিরোধী গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত থেকে দূরে সরে আসতে হবে। অন্যথায় দাবি আদায়র লক্ষে রাজপথে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী।
আজ সকালে নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

রিজভী বেগম খালেদা জিয়ার বর্তমান শারীরিক অবস্থা তুলে ধরে গণমাধ্যমকে জানান, ‌”মিডনাইট ইলেকশনে ক্ষমতা দখলকারী প্রধানমন্ত্রীর ভয়ংকর প্রতিহিংসার আর জেদের কারণে উপযুক্ত সুচিকিৎসার অভাবে সংকটাপন্ন হয়ে পড়েছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জীবন। বন্ধুরা, গতকালও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্কিন স্টেট ডিপার্টম্যান্টের বাৎসরিক মানবধিকার বিষয়ে রিপোর্টে বলেছেন, “বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের সরকার দুর্নীতির শক্ত প্রমাণ উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হয়েছে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারণে বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করে রাখা হয়েছে।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে,সংবিধান অনুযায়ী বাংলাদেশে সংসদীয় পদ্ধতির সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত আছে। কিন্তু কার্যত সব ক্ষমতাই প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কেন্দ্রীভূত হয়ে আছে।” তিনি যে মধ্যযুগীয় সম্্রাজ্ঞীর মতো দেশ শাসন করছেন সে কথা আমরা আগেই বলেছিলাম। সুতরাং আজ আর্ন্তজাতিকভাবেও শেখ হাসিনার কর্তৃত্ববাদী শাসনের বিরুদ্ধে বিবৃতি আসছে।

সকল সাংবিধানিক ক্ষমতা কুক্ষিগত করে শেখ হাসিনা শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হওয়ায় সম্পূর্ণ নির্দোষ বেগম জিয়াকে অন্ততঃ দু’শ বছরের প্রাচীন ও জীর্ন কারাগারে বন্দী করে রেখেছেন শেখ হাসিনা, মার্কিন স্টেটে ডিপার্টম্যান্টের রিপোর্টেও তা প্রমাণিত হলো। শেখ হাসিনার নির্দেশেই বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে সাজা দেয়া হয়েছে, তাঁকে জামিন নিয়ে টালবাহানা করছে, তাঁকে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে, বেগম জিয়ার সঙ্গে তাঁর পরিবারের সদস্যদের সাক্ষাৎ করতে দেয়া হেচ্ছে না।

মিডনাইট ইলেকশনের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই বিনা চিকিৎসায় ৭৪ বছর বয়সী ৪ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে ছোট্ট অন্ধকার প্রকোষ্ঠে ফেলে রেখে নারকীয় শাস্তি দেয়া হচ্ছে। দেশ চলছে শেখ হাসিনার নব্য নাৎসী শাসনে। বেগম জিয়ার উপর ভয়াবহ জুলুম নির্যাতন নাৎসীবাদ-সম্ভূত নীতিরই বহিঃপ্রকাশ। বেগম জিয়ার উপর সরাকরের অসহিষ্ণুতা প্রতিদিনই প্রবল হয়ে উঠছে। আমি সরকার প্রধানের উদ্দেশ্যে বলতে চাই ইতিহাস বড়ই নির্মম।

বন্দুকের জোরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে, রাতের আধারে ব্যালট পেপারে সীল মেরে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে, সংবিধানকে নিজের ইচ্ছামতো সংশোধনের দ্বারা অপরিসীম ক্ষমতাধর হয়ে উঠে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপর নিষ্ঠুর নির্যাতনের হিসেব একদিন জনগনের কাছে আপনাকে দিতেই হবে। এখনও সময় আছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন। তাঁকে তাঁর পছন্দ অনুযায়ী হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সুযোগ দিয়ে সুচিকিৎসার সুযোগে বাধা সৃষ্টি করবেন না।

LEAVE A REPLY