এবার হ্যাকারের কবলে করোনা টিকা প্রস্তুতকারি আ্যাস্ট্রোনেজনেকা

আপডেট: নভেম্বর ২৮, ২০২০
0

ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকা যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের সহায়তায় নভেল করোনাভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

কিন্তু বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে এ খবর জানিয়েছে- এর মধ্যেই অ্যাস্ট্রাজেনেকায় উত্তর কোরিয়ার সন্দেহভাজন হ্যাকারদের হামলার তথ্য প্রকাশ পেল।
রয়টার্স জানিয়েছে, হ্যাকিংয়ের ঘটনার বিষয়ে জানেন এমন দুজন তাদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নেটওয়ার্কিং সাইট লিঙ্কডাইন ও যোগাযোগমাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে হ্যাকাররা প্রথমে নিয়োগকর্তা সেজে অ্যাস্ট্রাজেনেকার কর্মীদের সঙ্গে ভুয়া কাজের প্রস্তাব নিয়ে যোগাযোগ করেন। এরপর চাকরির কাগজ পাঠানোর নাম করে অ্যাস্ট্রাজেনেকার কর্মীদের কাছে গোপনে ক্ষতিকর কোড পাঠানো হয়। একবার সেসব কাগজ কম্পিউটারে ডাউনলোড করলেই সংশ্লিষ্ঠ ওই কম্পিউটার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় হ্যাকারদের হাতে।

জানা গেছে,কিছু নির্দিষ্ট মানুষকে লক্ষ্য করে এই হ্যাকিং চালানো হয়েছে। একটি সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, এসব মানুষের সবাই কোনো না কোনোভাবে কোভিড-১৯ গবেষণার সঙ্গে যুক্ত। তবে প্রয়োজনীয় তথ্য নিতে হ্যাকাররা সফল হয়নি বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

জেনেভায় জাতিসংঘে উত্তর কোরিয়ার দূতের সঙ্গে হ্যাকিংয়ের যোগাযোগ করা হলেও এ নিয়ে তাদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। বিদেশি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে দেশটির যোগাযোগের কোনো সরাসরি উপায় নেই। তবে অতীতে উত্তর কোরিয়া সাইবার হামলার নানা অভিযোগ সবসময়ই অস্বীকার করে এসেছে।

এ ছাড়া অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা প্রস্তুতকারকেরাও এ নিয়ে রয়টার্সের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র জানিয়েছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকায় হ্যাকিংয়ে যেসব পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে, সেগুলো উত্তর কোরিয়ার দিকে ইঙ্গিত করে বলেই জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তা এবং সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা।

এতদিন এসব হ্যাকিংয়ের লক্ষ্য ছিল প্রতিরক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সংবাদমাধ্যম। কিন্তু সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত গবেষণা সাইবার হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্ত-সংশ্লিষ্ট তিন কর্মকর্তা।