করেনায় সৌদি আরবে প্রবাসী বাংলাদেশীদের বেহাল দশা

আপডেট: জুলাই ২০, ২০২০
0

মোঃ ওমর ফারুক,সৌদি আরবঃ
মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব ও সৌদি আরবের মন্দা অর্থনৈতিক অবস্থা এবং সৌদি আরবের নতুন নতুন শ্রম আইনের কারণে কর্মহীন অসহায় আবস্থাতে আছেন বিপুলসংখ্যক সৌদি আরব প্রবাসী বাংলাদেশী।

মধ্যপ্রাচ্যের তৈল সমৃদ্ধ দেশটিতে প্রায় ২২ লাখেরও বেশি প্রবাসী শ্রমিক বিভিন্ন পেশায় কর্মরত আছেন। সৌদি আরব সরকারের নতুন নতুন শ্রম আইন এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে সৌদিকরণের কারণে এমনিতেই গত দুই বছর ধরে বিপাকে আছেন সৌদি আরবে অবস্থানরাত প্রবাসী বাংলাদেশীরা।

এ-র মধ্যে নতুন করে যোগ হয়েছে বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব। প্রায় সাড়ে তিন মাসের ও বেশি সময় ধরে করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব ঠেকাতে দেশটিতে চলে লকডাউন ও কারফিউ যার যাঁতাকলে পড়ে কর্মহীন হয়ে পড়েছে লক্ষ লক্ষ প্রবাসী শ্রমিক কোম্পানিগুলো বন্ধ থাকায় এবং কারফিউর কারণে সকল রকমের কাজ কর্ম বন্ধ থাকায় কোন রকম খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করতে হয়েছে প্রবাসী শ্রমিকদের ।

সৌদি সরকারের বিভিন্ন পেশায় সৌদিকরণের কারণে এখানে প্রবাসী শ্রমিকদের কাজের ক্ষেত্রে চলে নিষেধাজ্ঞা। এ-ই নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে অনেক প্রবাসীকে হারাতে হয়েছে চাকুরী এবং অনেক প্রবাসীকে হারাতে হয়েছে নিজের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এভাবে অনেক প্রবাসীকে নিঃস্ব হয়ে ফেরত যেতে হয়েছে নিজ দেশে। এ-র মধ্যে ও কৌশল করে কিছু প্রবাসী চালিয়ে যাচ্ছিলেন তাদের ব্যবসা বানিজ্য।

এ-র মধ্যেই মরার উপর খাড়ারগা হয়ে নেমে এলো মহামারী করোনা ভাইরাস। যার প্রার্দুভাবে পুরো বিশ্ব অর্থনীতিই পড়েছে ঝুঁকির মূখে এবং এ-ই করোনা ভাইরাস লন্ডভন্ড করেছে সৌদি আরবের অর্থনীতিকেও , যার নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে প্রবাসী বাংলাদেশী শ্রমিকদের উপরেও। এ-র মধ্যে করোনা ভাইরাসে সৌদি আরবে এ পযন্ত প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় সাড়ে ছয় শত বাংলাদেশী আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২২ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশী।

কারফিউ এবং লকডাউন পুরোপুরি তুলে নিলে স্বাভাবিক হয়নি মানুষের জীবন যাত্রা, স্বাভাবিক হয়নি ব্যাবসা বানিজ্য ও চালু হয়নি বেশীর বড় বড় প্রতিষ্ঠান ও কনস্ট্রাকশন কোম্পানিগুলো এ-র মূল কারণ করোনায় বিপর্যস্থ অর্থনীতি এবং করোনা আক্রান্ত হয়ে হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুর সাথে লড়াই করছেন।

যার ফলে বিপুল সংখ্যক শ্রমিক কর্মহীন হয়ে হতাশগ্রস্থ হয়ে দিন কাটাচ্ছেন। কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে চালু হলেও কর্মসংস্থান হয়েছে খুবই কম লোকের এবং যাদের কর্মসংস্থান হয়েছে তাদের বেতনও নেমে এসেছে অর্ধেক এ-র ও নীচে।

এমতাবস্থায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন প্রবাসীরা কিভাবে চলবেন নিজেরা আর কিভাবেই দেশে পরিবারের জন্য পাঠাবেন খরচের টাকা। অর্থনৈতিক মন্দা ও করোনার কারণে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ও মাথায় হাত এভাবে বিশাল অংকের লোকসানের মূখে সৌদি আরবে অবস্থানকারী বিভিন্ন ধরনের ক্ষদ্র ব্যবসায়ীরা।

উমরাহ বন্ধ থাকায় এবং এবছরের হজ্জ ও সীমিত করার কারণে মক্কা মদিনার ব্যবসায়ীরাও পথে বসার অবস্থা। মক্কা ও মদিনায় বেশকিছু প্রবাসী বাংলাদেশী আবাসিক হোটেল ও এ-র সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ব্যবসার সাথে জড়িত তারা লাখ লাখ রিয়াল ইনভেস্ট করে এখন মাথায় হাত।

প্রতি বছর হজ্জের সময় মক্কা মদিনায় সারা বিশ্বের প্রায় ২৫ থেকে ৩০ লাখ হাজী সমবেত হতেন ফলে তাদের ব্যবসা হতো জমজমাট এ বছর করোনার কারণে তাও শেষ।

মোট কি যে বেহাল অবস্থায় দিন পার করছেন সৌদি আরবের প্রবাসী বাংলাদেশীরা তা ভুক্তভোগী ছাড়া কেউ বুজবে না।
এই রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের বোবা কান্না শোনার মতো কেউ নেই।

LEAVE A REPLY