করোনাঃ আসলে আমরা কেউ কারো নই!

আপডেট: জুলাই ১৩, ২০২০
0

সোহেল সানি
প্রাণঘাতী করোনা মানুষের ভেতরের খোলসটা উন্মোচন করে দিয়েছে। কঠিন এক সত্যের সঙ্গে দিয়েছে পরিচয় করিয়ে। পিতৃত্ব, মাতৃত্ব, ভগ্নি-ভ্রাতৃত্ব, স্বামিত্ব ও স্ত্রীত্ব সর্বপরি সব সম্পর্কই নিছক এক স্বার্থের সুতোয় বাঁধা। স্নেহ, শ্রদ্ধা, প্রেম ভালবাসা এ সবই স্বার্থান্বেষণ ব্যতীত কিছুই নয়। আসলে মানুষ ব্যক্তিকেন্দ্রিক সত্তায় বেড়ে ওঠে। নিজের সুখশান্তি বর্ধনের জন্য সে সমষ্টিগত রূপে কেবল রূপদান করে- যা নিতান্তই অভিনয়। এ অভিনব চরিত্র দিয়েই ঘরেবাইরে তার আধিপত্য বজায় রাখে। রক্তের উত্তরাধিকার বলে পারিবারিক যে সম্পর্কের বেড়াজাল – তা যে নিজ প্রাণ রক্ষায় ছিন্নভিন্ন করে দিতে পারে, প্রাণঘাতী করোনা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে। ‘রক্তের টান’, ‘প্রাণের টান’ বা ‘আত্মার টান’ এগুলো কথার কথা।
দু-চারটি ব্যতিক্রম ঘটনা লক্ষ্য করা গেলেও তা তো বিরল বিদগ্ধ প্রাণের টান- তা সমষ্টিগত চিত্র নয়। যেমন অবচেতন মনে প্রেমের টানে কপোত-কপোতীর স্বপ্রনোদিত আত্মাহুতি। প্রকৃতপক্ষে মানুষ স্বার্থান্ধ। সে নিজের স্বার্থে অন্যকে ভালবাসে বা আত্মীয়পরিজনকে সূত্র ধরে ব্যবহার করে। রক্তেরে অপেক্ষা অনেকে আত্মার সম্পর্ককে বড় বন্ধন বলে জাহির করে। অবশ্য,সমাজবাদীরা রক্তের বন্ধন-কে এগিয়েই রেখেছেন। সমাজের চোখও রক্তকেই প্রকৃত বন্ধন বলে বিবেচনা করে আসছে। সেটাও পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার সহায়সম্পদের ভাগবাটোয়ার বিষয়। করোনায় প্রত্যেকটি বন্ধন আজ ফাঁপা বেলুনের মতো ফেটে যাচ্ছে। বন্ধনের কোনই স্থায়ীত্ব নেই। মানুষ নিজের সুখবর্ধনের জন্যই স্বার্থান্ধে পরিণত হন। ফলে ঘটে বিপত্তি। স্বার্থে বেঘাত ঘটলেই যেকোন ধরণের বন্ধন চুকে যাওয়ার ঘটনা অহরহ। করোনা প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে পিতার – আর পিতার লাশ রাস্তায় কিংবা হাসপাতালে ফেলে রেখে পালিয়ে যাচ্ছে পুত্রকন্যা! করোনায় আক্রান্ত হচ্ছ স্বামী- স্ত্রী পালিয়ে যাচ্ছে বাপের বাড়ি। বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠানোর ঘটনা যদি হয় নিষ্ঠুর, মর্মান্তিক তাহলে করোনায় যে চিত্র ফুটে উঠেছে, তাকে কি বলবো?
আমার মানবমনের বন্দরঘাঁটে এখন একটি প্রশ্ন নোঙ্গর করেছে,আসলে রক্তের, বা দৈহিক বন্ধনটা আসলে কি সুখপ্রদ প্রশান্তির হাতিয়ার মাত্র? এর আইনানুগ, সামাজিক, আর্থিক ভিত্তির মূল্য আছে- তবে কেন?
রক্তের বন্ধনের সূত্র, যে উৎস হতে উদ্ভূত সেই জন্মদাতা ও জন্মধাত্রীর সম্পর্কের অবস্থান কি? রক্তের উত্তরাধিকারের সঙ্গে তুলনীয়? রক্তের বন্ধন অবিছেদ্য ও অবিচ্ছিন্ন অথচ স্বামীস্ত্রীর সম্পর্ক তা নয়। স্বামী-স্ত্রীর বন্ধনের স্থায়ীত্ব বরং সর্বদা হুমকীর সম্মুখীন। তাকে বিচ্ছিন্ন হবার আশঙ্কা নিয়ে অগ্রসরমান হতে হয়। মায়ের গর্ভে ও বাবার ঔরস্যে পুত্র কন্যার জন্ম, অর্থাৎ বাবা-মা’র রক্তের সংমিশ্রণের ফসল পুত্রকন্যা। স্বামীস্ত্রীর দৈহিক বন্ধন রক্তের বন্ধন অপেক্ষা নগণ্য বলেই বিবেচ্য হচ্ছে। অদ্ভূত এক সমীকরণ। দৈহিক সম্পর্কধারী স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে বিচ্ছেদ হতে পারে এবং হয়, কিন্তু রক্তের সম্পর্কটা অবিচ্ছেদ্য। তা হত্যা কিংবা ধ্বংসেও পরিত্যক্ত হয় না। স্বামীস্ত্রীর বন্ধনকে আত্মিক বন্ধন বলা হলেও এর তাত্ত্বিক বিশ্লেষণ বড় কঠিন যেহেতু আত্মার সম্পর্ক অদৃশ্যমান।
পৃথিবীর সর্ববৃহৎ জলস্থলভাগ বলে পরিচিত প্রশান্ত মহাসাগরের নির্ণয়হীন গভীরতার মতোও যদি হয় রক্তের বা আত্মার সম্পর্ক তাকেও আজ ম্লান করে দিয়েছে প্রাণঘাতী করোনা। আজ রক্তের বা আত্নার বন্ধনের গভীরতা কতটুকু তা আমরা অনুভব করছি করোনা কবলে পড়ে। অবশ্য আত্মার সম্পর্ক ঈশ্বরের সঙ্গে হয় মহামানবের সেই মহামানবের দেখা মিললেও কি আমরা করোনার করুণ ট্রাজেডির কথা কখনো ভুলতে পারবো?
পুরুষরাই মাতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা মূল শেকড় উপরে ফেলে পৃথিবীর বুকে পিতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা চালু করেছে। ‘মা’ প্রধান পারিবারিক ঐতিহ্যের অবলুপ্ত ঘটিয়ে। মা’র স্থলে সন্তানদের রক্তের সম্পর্ককে পিতা’র সূত্রে গেঁথে দেয়া হয়েছে। সেই কালের ‘জননী বিধি’র সমাজব্যবস্থাকে বলা হয় অসভ্য যুগ। তখন নারী ছিল পরিবারের অভিভাবক। পুরুষকে ‘দেবী’ হিসাবে নারীকে পুজো দিতে হতো। মায়ের উত্তরাধিকারী হতেন মেয়েরা। ছেলেরা ছিলেন শোষিত। সম্পদ ঐশ্বর্যের অধিকারীও মা সূত্রে মেয়েরা হতো।
পুরুষরা যুদ্ধ বিগ্রহে লিপ্ত হয়ে মাতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থার শেকড় উপরে ফেলে চালু করে বর্বর যুগের। মেয়ে বা কন্যা সন্তান জন্মদানের জন্য মা’র ওপর নেমে আসতো অকথ্য নির্যাতন, নিপীড়ন। উত্তরাধিকারী হয়ে ওঠলো ছেলেরা। কায়েম করা হলো জনক বিধি আইন। মানে পিতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা। তারপর মধ্যযুগের শুরু ধর্ম-গীর্জা কেন্দ্রিক শোষণ ব্যবস্থা। তারপর ফরাসী বিপ্লব ও রুশবিপ্লবের মাধ্যমে যে সনাতন বা আধুনিক যুগের শুরু। কিন্তু মানুষ কি মানুষ হতে পেরেছি আমরা? করোনা আজ দিচ্ছে কঠিন শিক্ষা। আর আমরা এমন শিক্ষার সাথে তো আগেই পরিচিত যে, ভাই ও বোনের সম্পর্ক রক্তের। অথচ, আমরা দেখছি, কত ভাই সেই রক্তের বন্ধনকে দু’পায়ে মাড়িয়ে দুচার হাত জমির জন্য বোনকে বিধবাও বানিয়ে দেয়। ধনসম্পত্তির লোভে ভাই- ভাইকে হত্যা রাজ-রাজ্য নিয়ে বিবাদ বিগ্রহ সেও কিন্তু করোনার চেয়ে ভয়ঙ্কর নয়।
কথায় কথায় মানুষ মানুষকে খুশী করার জন্য একটি শব্দ ব্যবহার করে থাকেন। তাহলো ‘আত্মার বন্ধন।’
ওই বন্ধনকে ঈশ্বর প্রদত্ত বলে সাফাইও গান তারা। ঈশ্বরের সঙ্গে আসলে সাধারণের বন্ধন হয় কিনা আমার বোধগম্য নয়। অবশ্য, মহামানবদের সঙ্গে ঈশ্বরের আত্মার বন্ধনকে অস্বীকার করা যায়না।
চলমান মানবসভ্যতায়।
মানুষের আত্মা যেহেতু ঈশ্বরের সন্ধান করে, সেহেতু আত্মার সম্পর্ক রক্ত বা দৈহিক সম্পর্কের শত-অযুত,লক্ষ-কোটি, মিলিয়ন-বিলিয়নেরও অধিক বড়,গভীর, বিস্তৃত। আমরা সেই ঈশ্বরের আত্মার সন্ধান করি, ঈশ্বরকে ভালবাসি আর মানুষকেও ভালবাসি – সব স্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে। ঈশ্বরই করোনা মুক্ত করবেন পৃথিবীকে।
লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

LEAVE A REPLY