কালিয়াকৈরে ট্রাক চাপায় নিরাপত্তা কর্মী নিহত, লাশ নিয়ে মহাসড়ক অবরোধ, অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর

আপডেট: জানুয়ারি ২২, ২০২৩
0

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ট্রাক চাপায় এক পোশাক কারখানার নিরাপত্তা কর্মী নিহত ও অপর তিন শ্রমিক আহত হয়েছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় বিভিন্ন পোশাক কারখানার কর্মীরা লাশ নিয়ে প্রায় চার ঘন্টা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করেছে। এসময় তারা ওই ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করে এবং অন্ততঃ অর্ধশত যানবাহন ভাংচুর করে। রবিবার কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম- আজাদুল হক (৩৫)। তিনি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার আমগঁাও গ্রামের মৃত আরব আলীর ছেলে। আজাদুল হক কালিয়াকৈরের উপজেলার চন্দ্রা এলাকাস্থিত মাহমুদ জিন্স পোশাক কারখানার নিরাপত্তা কর্মী ছিলেন।

মাহমুদ জিন্স পোশাক কারখানার ম্যানেজার গোলাম মাহমুদ ও স্থানীয়রা জানান, রবিবার সকালে কাজে যোগ দিতে শ্রমিকরা কারখানায় আসছিলেন। এসময় কারখানার সামনের ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক নিরাপদে শ্রমিকদের পারাপারের দায়িত্ব পালন করছিলেন আজাদুল হক। সকাল পৌণে ৮টার দিকে কিছু শ্রমিক একত্রে মহাসড়ক পার হচ্ছিল। এসময় আজাদুল যানবাহন থামাতে সিগন্যাল দেয়। সিগন্যাল দেখে কয়েকটি যানবাহন থেমে গেলেও দ্রুতগতিতে আসা ওই ট্রাকের চালক সিগন্যাল না মেনে আজাদুলসহ অপর কয়েক শ্রমিককে চাপা দিয়ে এগিয়ে যায়। এতে নিরাপত্তা কর্মী আজাদুল হক মাথা থেঁতলে গিয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন এবং অপর তিন শ্রমিক আহত হন। পরে চালক ট্রাকটি রেখে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করে।

কোনাবাড়ি হাইওয়ে পুলিশের ওসি আতিকুল ইসলাম ও কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যার হাইজ ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলাম জানান, এঘটনায় শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে কারখানা থেকে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ শুরু করে। এসময় তাদের সঙ্গে পার্শ্ববর্তী নূর গ্রুপের শ্রমিকেরাসহ আশেপাশের লোকজন যোগ দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা নিহত সহকর্মীর লাশ নিয়ে ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে অবস্থান নিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে। এসময় তারা ঘাতক ট্রাকটিতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং অন্ততঃ অর্ধশত যানবাহন ভাংচুর করে। গাড়িতে অগ্নিসংযোগের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নেভানোর জন্য ঘটনাস্থলের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদেরকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছঁুড়তে থাকে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা। একপর্যায়ে শ্রমিকেরা ধাওয়া করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের ফিরিয়ে দেয়। এতে যানবাহন আটকা পড়ে উভয়দিকে প্রায় ৫/৬ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে শাস্তি নিশ্চিত করার আশ্বাস দিলে প্রায় চারঘন্টা পর দুপুর পৌণে ১২টার দিকে শ্রমিকরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। প্রলিশ ঘাতক ট্রাকটি আটক করেছে। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

###