নিজে সংযমী হয়ে সন্তানকে সংযমের শিক্ষা দিন

আপডেট: অক্টোবর ১২, ২০২০
0

অনেক বাচ্চারাই অভিভাবকদের সান্নিধ্যের অভাবে মানসিক কষ্টে দিন কাটাচ্ছে।
মনে রাখা বিশেষ প্রয়োজন, এর জন্য আমরা সকলেই অনেকাংশে দায়ী। সুঅভিভাবকত্বের প্রাথমিক শর্ত হল সন্তানকে মূল্যবোধ এবং সহানুভূতিশীলতার পাঠ দেওয়া।

সেই পাঠ শুধু গল্প বা বক্তৃতার মাধ্যমে নয়, নিজেদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন কাজকর্মের মধ্যে দিয়ে শেখানোর মাধ্যমেই পূর্ণতা পেতে পারে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অভিভাবকদের মধ্যে এ বিষয়ে বিপরীতধর্মী আচরণ দেখা যায়।

প্রশাসনিক তৎপরতার জেরে গত প্রায় সাত মাস ধরে আমরা সবাই খুব প্রয়োজন ছাড়া বাইরে কম বেরিয়েছি। স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে সংক্রমণের ভয়ে। জীবনের সাথে যাপন করতে শিখেছি স্বাস্থ্য-বিধি।
উদ্দেশ্য একটাই, আমি এবং আমার পরিজনেরা যেন সুস্থ থাকে।

কিন্তু উৎসবের মওসুম পড়তে না পড়তেই সে সংযমের বাঁধ উধাও। কিছু দিন আগে অবধি যে শিশুটিকে অভিভাবক বাড়ির নীচের ফাঁকা জায়গায় সাইকেল পর্যন্ত চালাতে দিচ্ছিলেন না, আজ তারই হাত ধরে ভিড়ে ঠাসা শপিং মলে কেনাকাটা করতে বেরিয়ে পড়েছেন। স্বাস্থ্য-বিধির ঊর্ধ্বে গুরুত্ব পাচ্ছে খামখেয়ালিপনা।

স্বাস্থ্যকর্মীরা বারবার সাবধান করা সত্ত্বেও সামাজিক দূরত্ব-বিধির তোয়াক্কা না করে জমায়েত বা কেনাকাটা চলছে পুরোদমে। এই সাময়িক আত্মসুখের জন্য বিপুল সংখ্যক মানুষ যে আবার চরম শারীরিক-মানসিক সঙ্কটে পড়তে পারেন, সেই দিকটিকে বিন্দুমাত্র গুরুত্ব তো আমরা দিচ্ছিই না, উপরন্তু আত্মকেন্দ্রিক হওয়ার শিক্ষা দিচ্ছি সন্তানদের।

এ প্রসঙ্গেই মনে পড়ছে লকডাউন শুরুর সময়ের কথা। তখন অর্থনৈতিক ভাবে সবল বেশ কিছু পরিবার এত বেশি পরিমাণে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বাড়িতে মজুত করে রেখেছিলেন যে সাধারণ মানুষ দোকানে গিয়ে জিনিস পাননি। অথচ ‘সকলের তরে সকলে আমরা’— এই লাইনটি ছোট থেকে নীতিবিজ্ঞানের বইতে পড়েছি। এই কঠিন পরিস্থিতিতে যদি তার সদ্ব্যবহারই না করতে পারলাম, তাহলে কী-ই বা রেখে যাব ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য?

তাই নিজেরা সংযমী হয়ে সন্তানকে সংযমের শিক্ষা দিন। এই বছরটা অন্তত উৎসবে নিজেদের নির্লিপ্ত রাখার চেষ্টা করা যাক। তার বদলে আমাদের সন্তানদের উৎসাহ দিই সামাজিক কর্তব্য পালনে।

এই উৎসবের মরসুমে ওদের হাতে বানানো কার্ড, আঁকাজোকা, গান বা কবিতা পৌঁছে দিই সেই সকল স্বাস্থ্যকর্মী বা প্রশাসনের মানুষজনের কাছে, যাঁরা সমাজকে কোভিডমুক্ত করার গুরুদায়িত্ব সামলাচ্ছেন প্রতিদিন, প্রতি মুহূর্তে। মনে রাখবেন, আপনার-আমার হাত ধরেই ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শিখবে সামাজিক দায়িত্ব ও সহমর্মিতার পাঠ।

LEAVE A REPLY