নেতাদের নেতৃত্বের প্রশ্নে নানা পন্থা এবং পরিণতি!

আপডেট: জুলাই ১, ২০২০
0

সোহেল সানি

নেতৃত্বের পরিস্থিতিতে নানা পথ অবলম্বন করেন নেতারা। এসব পথগুলো হলো, উদারপন্থা, মধ্যপন্থা ও কট্টরপন্থা প্রভৃতি।
নেতাদের ক্ষেত্রে হতে পারে তা, ক্ষমতাসীন কিংবা ক্ষমতার বাইরে থাকাকালীন।
স্বাধীনতার আগে এবং পরে এদেশের রাজনীতিতে উল্লেখিত তিনটি পন্থারই প্রত্যক্ষ প্রভাব লক্ষ করা যায়। তবে কোন পন্থায় কী পরিণতি বয়ে আনছিলো? সে দিকে চোখ রাখার আগে মত ও পথগুলো উল্লেখ করছি।
রাজনীতির নেতৃত্বের একটি পথ হলো, সার্বভৌম কর্তৃত্ব করা।
সার্বভৌম নেতা একাই সব সিদ্ধান্তগ্রহণ করেন এবং তা বাস্তবায়নের জন্য নিম্নস্থদের ওপর চাপিয়ে দেন। নিম্নস্থদের মতামত জানতে চান না। এ কারণে যে, অবচেতন মনে নেতা আশঙ্কা করেন, নিম্নস্থ ন্যায্য কথা বলছেন, যা তার জন্য মানা সম্ভব নয় নয়। এমনকি সম্মানহানিকর।
নেতার এসব একাধিপত্য বেশিদিন টিকে না। অল্প সময় দলের কর্মীরা কপট আনুগত্য দেখায়, তবে অচিরেই দলে বিক্ষোভ দেখা দেয়।
প্রতিভাবান কর্মীরা কর্মকাণ্ড থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেয়, আর যারা লোভী তারা ষড়যন্ত্র শুরু করে দেয়। ফলে দলে কোন্দল ও দ্বন্দ্বের মুখে স্থবিরতা নেমে আসে। এতে করে সার্বভৌম নেতার কর্তৃত্বের অবসান ঘটে। যার ফল ভোগ করে কর্মীরা।
এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠাতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর একটি উক্তি প্রণিধানযোগ্য। সোহরাওয়ার্দী সারা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। কেন্দ্রের মতো পূর্বপাকিস্তানে আতাউর রহমান খানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। “৫৪ এর নির্বাচন মানে হক-শহীদ-ভাসানীর যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন বুঝাতো। অথচ, বিস্ময়কর যে, ওই নির্বাচনে পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগ সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী প্রার্থী হননি। এমনকি পরবর্তীতে পাকিস্তান গণপরিষদের যে ১৩টি আসন নিয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সরকার গঠন করে, সেই পরিষদেরও সদস্য ছিলেন না ভাসানী।
যুক্তফ্রন্টের রূপরেখায় তিন নেতা সিদ্ধান্ত ছিলো- নির্বাচনে মুসলিম লীগকে হারিয়ে যুক্তফ্রন্ট বিজয়ী হলে, পূর্বপাকিস্তান আইন পরিষদের নেতা হবেন শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক এবং পাকিস্তান গণপরিষদ নেতা হবে সোহরাওয়ার্দী। মওলানা ভাসানীর উদারপন্থা গ্রহণ করা ছিলো একটি দৃষ্টান্ত। ১৪৩টি আসন পেয়েও আওয়ামী লীগ শেরেবাংলাকে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মেনে নেয় অবশ্য তার তিক্ত অভিজ্ঞতাও আছে।
যাহোক মার্কিনীদের সঙ্গে সিয়াটো চুক্তি। দল পক্ষে বিপক্ষ। প্রধানমন্ত্রী সোহরাওয়ার্দী ক্ষেপে যান। তিনি বলেন “আওয়ামী লীগ আবার কী, আমিই আওয়ামী লীগ- আমিই মেনিফেস্টো।”
আওয়ামী লীগে তাঁর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া এতটাই তীব্র ছিলো, যে সোহরাওয়ার্দীর অতি অনুগত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক ওসমানী পদত্যাগ করেন। অপরিকে পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমানও নেতার বক্তব্য সমর্থন করেননি, বরং তিনি মর্মাহত হন। কট্টরপন্থী সোহরাওয়ার্দী সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। কিন্তু যুক্তফ্রন্ট শুধু ভাঙ্গেনি, আওয়ামী লীগও কাগমারী সম্মেলনের মাধ্যমে ভেঙ্গে যায়। মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠালাভ করে কেন্দ্রে এবং প্রদেশে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)। একটা পর্যায়ে পশ্চিমা ষড়যন্ত্রের বলি হয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা হারাতে হয়। নেতাকর্মীদের জীবনে নেমে আসে চরম নিপীড়ন নির্যাতন। পরে কট্টর পন্থার আরও পরিণতির কথা স্মরণ করবো।
তার আগে নেতৃত্বের দ্বিতীয় প্রণালীটির কথা উল্লেখ করছি। এটি হলো, হিমশীতল, যন্ত্রবৎ, নিয়মানুবর্তী কর্মীপন্থা। অথচ, হিমশীতল নিস্পৃহ পদ্ধতিতে কর্মনিপুণতা আনার চেষ্টা যথাযথ পন্থা নয়। যে সব ‘মেশিন’ গুলো শাসক বা নেতার অধীনে কাজ করে তারা নিজেদের সম্পূর্ণ কর্মদক্ষতা প্রয়োগ করে না। এই পথ অবলম্বনকারীরা আক্ষরিকঅর্থে পুস্তিকা আলোকে পথ চলেন। প্রতিটি প্রণালী সাধারণ বিষয়গুলোর জন্য পথনির্দেশ মাত্র- এটা তারা বুঝতে চান না। বিশ্লেষকদের মতে, এই নেতারা সাধারণ মানুষকে যন্ত্র মনে করেন। আর মানুষ যে সব জিনিস ঘোর অপছন্দ করে তার মধ্যে একটা হলো যন্ত্রের মতো আচরণ পাওয়া।

আর তৃতীয় পন্থা অবলম্বনকারী হলেন, ‘মানবিক বোধসম্পন্ন নেতা’- যিনি শ্রেষ্ঠ নেতৃত্ব দিতে পারেন।
নেতৃস্থানীয় বলতেই বোঝায় প্রচন্ড ব্যস্ত নেতা। নেতৃস্থানীয়রা কর্মযুদ্ধের মাঝখানে দাঁড়ান। তবে নেতৃস্থানীয়রা কিন্তু বেশ খানিকটা সময় কাটান, যখন তাদের একমাত্র সঙ্গী হয় ভাবনাচিন্তা।
বিভিন্ন ধর্মের মহাপুরুষরা, প্রত্যেকেই বেশ খানিকটা সময় একা থাকতেন। অনেক নেতার মধ্যেই এভাবে উদারতার সৃষ্টি হয়, হয়ে ওঠেন মধ্যপন্থী। মহানবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, যীশু, বুদ্ধ, কনফিউসিয়াস জীবনের ঘোরপ্যাঁচ থেকে দূরে একা নিজের সঙ্গে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করেন। তাঁরা একাকীত্বে পেয়েছেন চিন্তার স্বাধীনতা, চিন্তার গভীরতা। বিশ্লেষকরা মনে করেন, ফ্রঙ্কলিন রুজভেল্ট পোলিও আক্রান্ত হওয়ার পর সেরে ওঠার সময় যদি একা না থাকতেন তাহলে আদৌ নিজের অসাধারণ নেতৃত্বের ক্ষমতা বিকশিত করতে পারতেন কিনা সন্দেহ। হ্যারি ট্রুম্যান দীর্ঘসময় মিসোরিতে একাকী কাটিয়েছেন।
এডলফ হিটলার বেশকিছু বছর জেলজীবন কাটিয়ে ছিলেন বলেই ক্ষমতার পাহাড় গড়ে তুলেছিলেন। এই জেলে বসেই কুখ্যাত ‘মাই কেম্ফ’ লেখার সুযোগ পেয়েছিলেন, যাতে বিশ্বজয়ের কুটকৌশলের উল্লেখ ছিলো এবং জার্মানরা যার অন্ধ ভক্ত হয়ে উঠেছিলো। কিন্তু কট্টর পন্থা তাঁকে ধ্বংস করে। কমিউনিজমের কূটনীতিতে সুদক্ষ লেলিন, স্ট্যালিন, মার্ক্স সব নেতাই জেলে বসেই ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নির্বিঘ্নে তৈরি করার সুযোগ পান। মহাত্মা গান্ধী একাকীত্বের কারণেই তার ভেতরে অহিংস বাদী চিন্তাভাবনা গড়ে উঠে। একইভাবে নেলসন ম্যান্ডেলাও বিকশিত হন জেল বন্দী হয়ে। যেমন দীর্ঘ কারাজীবনে বঙ্গবন্ধুও বিকশিত হয়েছেন।
মানবিক পন্থা অনুসরণ করে সুদক্ষ হয়ে উঠেছিলেন ও তার সুফলও উপভোগ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। মানবিকতাবোধের পরিণাম প্রশংসনীয় ছিলো। বঙ্গবন্ধুকে গোপনেও নিন্দা করা হতো না। তিনি ……. নিজের অধীনস্থদের কাজে বেশি নিরাপত্তা দিয়েছিলেন। যে কারণে তাঁর শারীরিক অনুপস্থিতিতে সহকর্মীরা একটি সফল মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে সমর্থ হয়েছিলেন। দেশে ফিরে কর্মযজ্ঞেও সম্পূর্ণ নিরাপত্তা পেয়েছিলেন। কিন্তু নিয়মাতান্ত্রিক রাজনীতির চিরবন্ধুর পথ পরিহার করে যখনই সার্বভৌম ক্ষমতার কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ব্রত হলেন, তখনই নিজ দলের মধ্যেই সহকর্মীরা অনেকে ষড়যন্ত্র যুক্ত হলো। সেই ষড়যন্ত্রের কুৎসিত চেহারা ফুটে উঠে খুনী মোশতাকের মন্ত্রিসভায়। বঙ্গবন্ধু হত্যা গোটা বাঙালি জাতির জন্য মহা ট্রাজেডি। মোশতাকের পতনের পর আওয়ামী লীগের পুনর্জীবনের মাধ্যমে ‘বাকশাল’ -কে না বলার মধ্যে স্পষ্ট ইঙ্গিতবহন করছিলো, যে ‘সার্বভৌম কর্তৃত্ব’ পন্থা অবলম্বন সঠিক ছিলো না। খুনী মোশতাকও পনেরো দিনের মাথায় বাকশাল আদেশ বাতিল করে সার্বভৌম ক্ষমতার পথ এড়িয়ে চলছিলো।
হিমশীতল যন্ত্রবৎ নিয়মানুবর্তী কর্মী পন্থা অনুসরণকারী মানে কমিউনিস্ট পন্থা। এটার প্রতিও মানুষের আস্থা সৃষ্টি হয়নি।
সংসদের সার্বভৌম কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা সংসদীয় পদ্ধতির মধ্যে নিহিত। সংসদ সার্বভৌম প্রকারান্তরে জনগণই সার্বভৌম। সেই সংসদের প্রধান নেতা নিঃসন্দেহে সর্বদিক দিয়ে প্রশংসনীয়। কিন্তু সদস্যগণ কতটা মানবিকতাবোধ সম্পন্ন এবং এর সংখ্যা কত সেটা গুরুত্বপূর্ণ।
সংসদীয় গণতন্ত্রের প্রতি মানুষের আস্থা শতভাগ। সেই গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে পারাটাও একটা বড় কথা।

লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

LEAVE A REPLY