‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট’র নতুন নামকরণ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১
0

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত প্রতিষ্ঠান মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর নাম সংশোধন করে ‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট’ নামে নতুন নামকরণ করা হয়।
শনিবার অনুষ্ঠিত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০ সালের দ্বিতীয় বিশেষ সিনেট অধিবেশনে এ নতুন নামকরণ করা হয়েছে।

এছাড়াও কয়েকটি নতুন দপ্তর ও শাখা সৃষ্টি ও তফসিল সংবিধিবদ্ধ করা হয়। ভাসুর্য়ালি অনুষ্ঠিত অধিবেশনে সিনেট চেয়ারম্যান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ সভাপতিত্ব করেন।

অধিবেশনে সিনেট চেয়ারম্যান উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ তার অভিভাষণে দীর্ঘ দুই টার্ম অর্থাৎ ৮ বছর পুরন শেষে তার প্রশাসন আমলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটিভিত্তিক পরিচালন ব্যবস্থা, আঞ্চলিক কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রশাসনের বিকেন্দ্রীকরণ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ, নতুন নতুন একাডেমিক কার্যক্রম প্রবর্তন, কলেজ শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের বিশেষ আয়োজনের কথা উল্লেখ করেন। এসময় তিনি বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতিকালিন শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য গৃহীত কার্যক্রম, মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপ, কলেজ পারফরমেন্স র‍্যাংকিং, মডেল কলেজ প্রকল্প, ১৩টি শতবর্ষী কলেজ প্রকল্প, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য পরিবহন সুবিধা সম্প্রসারণ, প্রশাসনকে অধিকতর দক্ষ স্বচ্ছ গতিশীল ও জবাবদিহিমূলক করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে একাধিক নতুন দপ্তর ও সেল সৃষ্টি, সিন্ডিকেট সিনেট একাডেমিক কাউন্সিলসহ বিভিন্ন বডির সভা, কলেজ ও প্রফেশনাল প্রতিষ্ঠানের অধিভুক্তি, শিক্ষার্থীদের এম ফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি প্রদান, স্পেনভিত্তিক শিক্ষা গবেষণা প্রতিষ্ঠান ওয়েবমেট্রিকস এর র‍্যাংকিং এ বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের মধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৩তম স্থান অর্জন ইত্যাদি সংশ্লিষ্ট তথ্য ও পরিসংখ্যান তুলে ধরেন।

তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভবিষ্যতে করণীয় এমন ২১টি সুপারিশ উল্লেখ করে বলেন, আমাদের প্রতিনিয়ত স্মরণে রাখা দরকার, পদ-পজিশন ভোগের জন্য নয়, ত্যাগ ও সেবার মধ্যেই স্বার্থকতা। উচ্চপদে আসীনদের সমাজে শুদ্ধাচারের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হয়। সর্বশেষে উপাচার্য তঁার অভিভাষণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বলেন, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সততা ও নিষ্ঠা থাকলে মানুষের পক্ষ্যে অসম্ভব কিছু নয়।

সিনেট অধিবেশনে করোনাকালীন যেসব দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও অন্যান্য যেসব ব্যক্তিত্ব মৃত্যুবরণ করেছেন সভায় তাদের বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয় এবং বাংলাদেশ জাতিসংঘ কতর্ৃক ৩ বছর পূর্বেই উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি লাভ করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তঁার সরকার এবং দেশবাসীকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করা হয়।

সিনেটে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি নতুন দপ্তর ও শাখা সৃষ্টি ও তফসিল সংবিধিবদ্ধ করা হয়। এছাড়াও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত প্রতিষ্ঠান মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর নাম সংশোধন করে ‘বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট’ নামে নতুন নামকরণ করা হয়।

অধিবেশনে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সংসদ সদস্য বেগম আরমা দত্ত, সংসদ সদস্য ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মীজানুর রহমান, বিশিষ্ট নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার ও সকল বিভাগীয় কমিশনারসহ মোট ৫৬ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। তারা শিক্ষার মানোন্নয়ন বিষয়ে বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন এবং উপাচার্যের অভিভাষণের উপর আলোচনা করেন।

আলোচকবৃন্দ উপাচার্যের দক্ষ, স্বচ্ছ ও গতিশীল নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তারা বলেন, বিগত ৮ বছরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বক্ষেত্রে যে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে তা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ইতিহাস হয়ে থাকবে।