বুয়েট’র ৯৭ ব্যাচের ছাত্রদের Safe2Doff ডিসিনফেক্শন চেম্বার সফল

আপডেট: মে ২১, ২০২০
0

নিজস্ব প্রতিবেদক:
গত সপ্তাহে কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রি সরকারি হাসপাতালে সফল ইন্সটলেশনের পর , কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে Safe2Doff ডিসিনফেক্শন চেম্বার এর দ্বিতীয় ইউনিট টি আজ সফলভাবে ইনস্টল করার হলো।

স্বাস্থ্যকর্মীরা যখন ডিউটি শেষে তাদের পরিধেয় PPE গুলো ছাড়েন (যেটাকে টেকনিকাল ভাষায় বলা হয় Doffing), তখন সেটা ধীর স্থির ভাবে করতে হয়। তাড়াহুড়ো করলে ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার আশংকা থাকে। সাধারণ সময়ে এ সম্ভাবনা অতটা বেশি নয়। কিন্তু অভূতপূর্ব এ কোভিড ক্রাইসিস এ, একসঙ্গে অসংখ্য স্বাস্থ্যকর্মী যখন doffing করেন তখন এ আক্রান্তের হার অনেক বাড়ার আশংকা থাকে।

তাই এই আক্রান্তের হার কমানোর জন্য, doffing এর আগেই PPE তে ভাইরাস লোড কমানোর উদ্দেশ্যে, বুয়েট এর ৯৭ ব্যাচের কিছু ছাত্রদের উদ্যোগ Safe2Doff নামের এই ডিসিনফেক্শন চেম্বার টি।

অন্য অনেক ডিসিনফেক্শন চেম্বার এর ভিড়ে Safe2Doff একটা আলাদা জায়গা করে নিয়েছে এটার বিশেষায়িত ব্যবহারের জন্য। অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ সামনে ছিল। সঠিক ডিসিনফেক্শন এর জন্য অনেকগুলো প্যারামিটার অপ্টিমাইজ করতে হয়। ডোজিং সময়, সল্যুশন এর মাত্রা , ড্রপলেট সাইজ , কন্টাক্ট টাইম এবং আরও নানান বিষয়। Safe2Doff এর কার্যকারিতা প্রটোকল ডেভেলপ করতে বিভিন্ন রিসার্চ পেপার এর সাহায্য নেয়া হয়েছে।

100 বছরে একবার আসা এরকম মহামারী তে সময়ের প্রয়োজনে এই সিস্টেমটি বানানো হয়েছে। কোন সল্যুশন টা উপযোগী হবে, কতটুকু ব্যবহার অপটিমাম উপযোগিতা দিবে, কোনটি ব্যবহার করলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকবে না , কোন ডিসিনফেক্ট্যান্ট পরিবেশ দূষণ করে না, এ সব গুলোই বিবেচনা করা হয়েছে। এগুলো করতে করতে গিয়ে একদিকে দেখা হয়েছে WHO , CDC (USA) আর EPA এর গাইডলাইন, দেখা হয়েছে প্রকাশিত সাম্প্রতিক দেশি ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃত জার্নাল, অন্যদিকে অসংখ্য বিশেষজ্ঞ (দেশে এবং বিদেশে কর্মরত ) ও প্রতিষ্ঠানের ও পরামর্শ নেয়া হয়েছে।

কুর্মিটোলা হাসপাতাল এর ডিরেক্টর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিল এই উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করে জানান, Safe2Doff এর গবেষণা ভিত্তিক এপ্রোচ, ডাক্তারদের সঠিক সুরক্ষা দিতে সহায়তা করবে।

তিনি বুয়েট ৯৭ ব্যাচ, যারা এই প্রচেষ্টায় জড়িত, তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন সবাই একসাথে এগিয়ে আসলে স্বাস্থ্যকর্মীদের মনোবল অটুট থাকবে এবং বাংলাদেশ এ ক্রান্তিকাল অতিক্রম করবে অদূর ভবিষ্যতে।

LEAVE A REPLY