বেওয়ারিশ কুকুর স্থানান্তর না করে তাদের যত্ন করুন : নিজেরা নিরাপদে থাকুন- নগরবাসীকে মেয়র তাপস

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০
0

বেওয়ারিশ কুকুর স্থানান্তর নিয়ে অভায়ারণ্যসহ সংশ্লিষ্ট কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গের সাথে মতবিনিময় সভায় ডিএসসিসি মেয়র মহোদয় যে বক্তব্য রেখেছেন তার সংক্ষিপ্তসার

আজ বিকেলে নগরভবনের বুড়িগঙ্গা হলে বেওয়ারিশ কুকুর অপসারণ নিয়ে অভয়ারণ্যসহ সংশ্লিষ্ট কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সাথে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। সভায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ তাদের বিভিন্ন ধরণের পর্যবেক্ষণ, দেশি-বিদেশি গবেষণা ও তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন। সভার শেষ পর্যায়ে ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস যে বক্তব্য রাখেন, সেই বক্তব্যের সংক্ষিপ্তসার পয়েন্ট আকারে এখানে তুলে ধরা হলোঃ

আপনাদের বরাতে যে বিষয়টি উঠে এসেছে, সেটি হলো, অনেকগুলো বেওয়ারিশ কুকুরকে কেউ না কেউ পুষছে বা খাবার দিচ্ছে বা তাদের নিয়ন্ত্রণে রেখে এগুলোকে দেখভাল করছে। সেসব বেওয়ারিশ কুকুরগুলোকে যদি আপনারা চিহ্নিত করেন, তাহলে আমরা সেগুলো স্থানান্তর করব না।
একটা আলোচনা বা বৈঠকের মাধ্যমে এ সমস্যার কার্যকর সমাধান হবে না। আজ বৃহৎ পরিসরে বসলাম, প্রয়োজনে আমরা আরও বাসবো। এরই মধ্যে এসব বেওয়ারিশ কুকুরের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার জন্য আমাদের কাছে আপনাদের কিছু সুপারিশ বা কিছু পরামর্শ লিখিত প্রস্তাব আকারে দিন।
আমাদের কর্ম পরিকল্পনার সাথে আপনাদের সুপারিশ, পরামর্শগুলো সমন্বয়ের প্রয়াস থাকবে। তবে আমাদের সমন্বিত সেই প্রয়াসে আমরা সবাই মিলে একটি যৌক্তিক ও বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্তে উপনীত হতে চাই, যাতে করে যত্রতত্র বেওয়ারিশ কুকুরগুলো উন্মুক্তভাবে ঘুরে বেড়াতে না পারে, সেটাই আমাদের সর্বোচ্চ বিবেচ্য বিষয়।

আপনারা মানুষের মাঝে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেন, যেন কেউ একটু বিস্কিট বা একটু খাবার দিয়ে বেওয়ারিশ কুকুরের প্রতি ভালোবাসার দায়সারা বহি:প্রকাশ না করে সেসব বেওয়ারিশ কুকুরের পরিপূর্ণ দায়িত্ব নেন। বেওয়ারিশ কুকুর প্রেমী মানুষজন যেন এসব পশুকে পোষ্য হিসেবে গ্রহণ করেন এবং পোষ্য প্রাণীর পরিপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।

এসব বেওয়ারিশ কুকুরকে পোষ্য কুকুর হিসেবে গ্রহণ করে পূর্ণ দায়িত্বে যেন নিজ ঘরে নিয়ে যান এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পরিপূর্ণ পরিচর্যার ব্যবস্থা নেন। খাবারদাবারের পাশাপাশি যেন পরিপূর্ণ ভরণ পোষণ করেন, সঠিকভাবে পরিচর্যা করেন। এতে করে নগরবাসীও শান্তি পাবে, সকলেই স্বস্তিতে থাকবে, বেওয়ারিশ কুকুরগুলোও নিরাপদ থাকবে।

আমাদের মূল লক্ষ্য হলো, ঢাকাকে একটি উন্নত ঢাকা হিসেবে গড়ে তোলা। পৃথিবীর উন্নত কোন দেশের উন্মুক্ত সড়কে, পার্কে, খেলার মাঠে বেওয়ারিশ কুকুর পাওয়া যায় না। আমরা ঢাকাকেও সেই পর্যায়ে নিয়ে যেতে চাই, একটি উন্নত শহর হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আসুন, আমরা সবাই মিলে সেই লক্ষ্যে কাজ করি।

LEAVE A REPLY