ব্লেড দিয়ে শিশুর শরীর ক্ষত-বিক্ষত করলেন গৃহকর্ত্রী

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১
0

ময়মনসিংহ শহরের চরপাড়া এলাকায় আট বছরের এক গৃহকর্মী শিশুর শরীর ব্লেড দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করার অভিযোগ উঠেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই শিশুকে ফুলবাড়ীয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আজ শুক্রবার দুপুরে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. সাবিনা ইয়াসমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, অভাবে তাড়নায় আট বছরে শিশুকে শহরের চরপাড়া এলাকায় এক বাসায় গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজের জন্য দেন তার মা-বাবা। দেন। ওই বাসায় নিটু ও আসমা নামে দুই বোন থাকেন। আসমা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে কর্মরত বলে জানা গেছে।

কাজ শুরুর কিছুদিন পরই আসমা, তার স্বামী সাইফুল ইসলাম ও বোন নিটু মিলে নানা অজুহাতে শিশুটিকে মারধর শুরু করেন। তারা ওই শিশুর শরীরের বিভিন্ন স্থানে ব্লেড দিয়ে চিড়ে দেন। এক পর্যায়ে অচেতন হয়ে পড়ে সে। পরে নির্যাতনকারীরা শিশুটিকে গ্রামের বাড়িতে রেখে আসেন। শিশুটির সারা শরীরে ক্ষত দেখে তাকে ফুলবাড়ীয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়।

শিশুটির মা জানান, নির্যাতনের ঘটনায় শিশুর চাচা সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে আসমা, স্বামী সাইফুল ইসলাম ও বোন নিটুকে আসামি করে ফুলবাড়িয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এদিকে নির্যাতনের খবর পেয়ে ফুলবাড়ীয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা জাকির হোসেন হাসপাতালে শিশুটিকে দেখতে যান। তার সুষ্ঠু চিকিৎসা ও ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান। মোল্লা জাকির হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি ময়মনসিংহ সদরের। আমি কোতোয়ালি মডেল থানার ওসিকে জানিয়েছি।’

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ বলেন, ‘নির্যাতনের ঘটনাটি রাতে শুনেছি। এখনও কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’