সাতক্ষীরায় ত্রাণ নিয়ে জার্মান রাষ্ট্রদূতের অভিযোগ

আপডেট: নভেম্বর ২০, ২০২০
0

দেশের সাতক্ষীরা জেলায় ত্রাণ বিতরণ নিয়ে স্থানীয় রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন খোদ ঢাকায় জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেন হোলৎজ।

তিনি বলেছেন, সাতক্ষীরার কিছু রাজনীতিক বিদেশি সাহায্যের এই ত্রাণকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করার চেষ্টা করেছেন। তারা এনজিওদের ওপর প্রভাব খাটিয়ে ত্রাণ বন্টনে হস্তক্ষেপ করার চেস্টা করেছেন।

জলবায়ু পরিবর্তন ও বন্যার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ছয় হাজার পরিবারের মধ্যে ওই ত্রাণ বিতরণের কর্মসূচি নিয়েছিলো ঢাকার জার্মান দূতাবাস।

পনেরই নভেম্বর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেনহোলৎজ নিজেও যোগ দিয়েছিলেন।

তবে আজ এক টুইট বার্তায় তিনি হতাশা প্রকাশ করে বলেন, সাতক্ষীরার কিছু রাজনীতিক ত্রাণ সাহায্যকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহারের চেষ্টা করেছে। অবশ্য নিজেদের প্রচেষ্টায় জার্মান কর্মকর্তারা শেষ পর্যন্ত ঠিক মতো সেগুলো যাদের প্রয়োজন তাদের মধ্যে বিতরণ করতে পেরেছেন।

করোনাভাইরাসের ত্রাণ আত্মসাৎ করছেন নেতারা, ব্যবস্থা কী?

যদিও সাতক্ষীরা আশাশুনি উপজেলায় এ ত্রাণ বিতরণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন সেখানকার সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন সুলতানা।

তিনি বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ত্রাণ বিতরণের জন্য তালিকা প্রণয়ন ও বিতরণের সব কাজ করেছে দূতাবাসের মনোনীত এনজিও।

“আমরা বিকেলের দিকে ঝামেলা শুনে সেখানে গিয়েছিলাম। গিয়ে দেখলাম, শেষ দিকে যে পরিমাণ ত্রাণসামগ্রী ছিলো তা বেশি লোককে দেয়ার জন্য কমিয়ে ভাগ করে দেয়া হচ্ছে। তবে কোনো ঝামেলা আমাদের চোখে পড়েনি।”

শাহীন সুলতানা বলেন, আসলে শেষের দিকে অনেক বেশি লোকজন চলে এসেছিলো। তবে দূতাবাসের মনোনীত এনজিওই সব তদারকি করেছে।
প্রায় ছয় হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেছে জার্মান দূতাবাস

স্থানীয় চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিল বলছেন, প্রতিটি ত্রাণের প্যাকেটে লেখা ছিলো ২৫ কেজি।

“কিন্তু শেষ দিকে ১২ কেজি করে দেয়া হলে যে এনজিওর মাধ্যমে দেয়া হচ্ছিলো তাদের স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যেই এটা নিয়ে কথা ওঠে। তখন জানানো হয় যে বেশি লোকজনকে দেয়ার জন্য প্যাকেট ভাগ করে দেয়া হচ্ছে,” বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন তিনি।

মি. শাকিল বলেন, স্থানীয় রাজনৈতিক কর্মীরা কেউ এর ধারে কাছেও যায়নি।

“তারা ডেকেছিলো বলে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গিয়ে পরে আবার চলে এসেছিলাম। শেষ দিকে প্যাকেটের পরিমাণে কম থাকায় তাদের স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে সমস্যা হয়েছে। পরে এসি ল্যান্ডসহ অন্যরা গিয়েছেন। আর কোনো সমস্যার কথা শুনিনি”।
সূত্র- বিবিসি।

LEAVE A REPLY