১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংক হিসাব তলবে উদ্বেগ : সাংবাদিক সংগঠন ও নেতাদের হেয় করার অপচেষ্টা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১
0

সাংবাদিকদের প্রতিনিধিত্বশীল ৬টি সংগঠনের ১১ জন নেতার ব্যাংক হিসাব তলব ও তা ফলাও করে প্রচারের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) নির্বাহী পরিষদ।

সাংবাদিকদের স্বার্থ রক্ষা ও অধিকার আদায়ে সংগ্রামরত সাংবাদিক সংগঠনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা এবং এর নির্বাচিত নেতাদের হেয় করার মাধ্যমে স্বাধীন সাংবাদিকতার ওপর নতুন করে চাপ সৃষ্টি করাই লক্ষ্য বলে মনে করে বিএফইউজে ও ডিইউজে’র নির্বাহী পরিষদ।

আজ মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) এক যুক্ত বিবৃতিতে দুই সংগঠন এ উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। বিবৃতিতে নির্বাহী পরিষদের নেতৃবৃন্দ বলেন, ১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংক হিসাব বিবরণী তলব করে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) সকল তফসিলী ব্যাংকে চিঠি পাঠিয়েছে। সাংবাদিকদের প্রতিনিধিত্বশীল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ৬টি সংগঠনের ১১ জনের নাম রয়েছে ওই তালিকায়। ঢাকাসহ সারাদেশের কয়েক হাজার পেশাদার সাংবাদিকের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে তারা দায়িত্ব পালন করছেন। বিশেষত বহু সংখ্যক গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান বন্ধ, দীর্ঘ সময়ের বেকারত্ব, চাকরিচ্যুতি, মাসের পর মাস বেতন-ভাতা বকেয়ার মত বৈরী পরিস্থিতি মোকাবিলা করে টিকে থাকার সংগ্রাম করছেন কর্মরত সাংবাদিকেরা।

কোন বিশেষ নেতার বা সাংবাদিকের ব্যাংক হিসেবে অস্বাভাবিক লেনদেন বা অর্থ পাচারের সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকলে তার বিরদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আইনী প্রক্রিয়ায় ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। কিন্তু ঢালাওভাবে সংগঠনের শীর্ষ পদে নির্বাচিতদের আর্থিক লেনদেন তলব সাংবাদিক সংগঠন ও এর নেতৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ এবং হেয় করার দুরভিসন্ধি কিনা সে প্রশ্ন উঠেছে। সাংবাদিক ছাড়াও অন্যান্য পেশাজীবী সংগঠনের নেতাদের হিসাব বিবরণীও একই সঙ্গে তলব করা হলে, দেশে হাজারো কোটি টাকা লুটপাটের যেসব চাঞ্চল্যকর খবর প্রতিনিয়ত গণমাধ্যমে আসছে তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিলেই কেবল এ ধরনের পদক্ষেপের যৌক্তিকতা মিলতো।

বিএফইউজে ও ডিইউজে নির্বাহী পরিষদ মনে করে, দেশে এমনিতে গণমাধ্যম চরম সংকটকাল অতিক্রম করছে। স্বাধীন ও সাহসী সাংবাদিকতার পরিবেশ বিপন্ন। এমন নাজুক পরিস্থিতিতে ঢালাওভাবে সাংবাদিক সংগঠন ও নেতাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অপপ্রয়াস সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকদের মধ্যে নতুন করে চাপ ও আতঙ্ক সৃষ্টি ছাড়াও জনমনে ভুল বার্তা দেবে।

অবিলম্বে এ ধরনের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তৎপরতা বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছে দুই নির্বাহী পরিষদ।